চিঁড়ে, মুড়িকল শ্রমিকদের
আন্দোলনের জয় বাড়ল
মজুরি, মিলল বোনাস

নিজস্ব সংবাদদাতা   ১২ই অক্টোবর , ২০১৮

পূর্বস্থলী, ১১ই অক্টোবর— সি আই টি ইউ-র নেতৃত্বে চিঁড়ে ও মুড়ি কল শ্রমিক ইউনিয়নের লাগাতার আন্দোলনে শ্রমিকদের মজুরি বাড়ল। পেলেন বোনাস। এই জয়ের খবর ছড়িয়ে শ্রমিকরা শামিল হলেন বিজয় মিছিলে।

বুধবার শ্রীরামপুর মিল মালিকের অফিসে শ্রমিক ও মালিকপক্ষ দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি হয় ১৫ শতাংশ হা‍‌রে এবং বোনাস ৫ শতাংশ হারে দেওয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে মালিক। পূর্বস্থলী থানা এলাকায় ৪৪টি কলে মোট ৬০০ শ্রমিক উপকৃত হলেন।

শ্রীরামপুরের চিঁড়ে ও মুড়ি কলের শ্রমিক ইউনিয়নের সম্পাদক চঞ্চলকুমার সাহা বলেন, এই জয় আন্দোলনের জয়। সমস্ত কলের শ্রমিকদের অভিনন্দন জানিয়েছেন, সি আই টি ইউ বর্ধমান জেলার নেতা প্রবীর মজুমদার, সুব্রত ভাওয়াল ও রতন দাস। শ্রীরামপুর অঞ্চলের চিঁড়ে ও মুড়ি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি গান্ধী দাস ও সম্পাদক চঞ্চু কুমার সাহা বলেন, শ্রীরামপুর এলাকার চিঁড়েকল, মুড়িকল ও খইকলের ৬০০ শ্রমিক মাস ব্যাপী লাগাতার আন্দোলন করছিলেন। শ্রমিক ইউনিয়নের প্রতিনিধিদের সাথে মালিকপক্ষ প্রতিনিধিদের নিয়ে আলোচনাসভা হয়। শ্রমিকদের দাবি ছিল ৩৩ শতাংশ হারে মজুরি বৃদ্ধি ও ৮.৩৩ শতাংশ হারে বোনাস। আলোচনায় মালিকপক্ষ দিতে রাজি না হওয়ায়, পরবর্তী সভায় বসেই মালিকপক্ষ সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন শ্রমিকদের ১৫ শতাংশ হারে মজুরি বৃদ্ধি করা হবে। এছাড়া ৫ শতাংশ হারে বোনাস দেওয়া হবে বলে উভয় পক্ষ চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন সি আই টি ইউ অনুমোদিত চিঁড়ে ও মুড়ি কলের শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি গান্ধী দাস, সম্পাদক চঞ্চলকুমার সাহা, সদস্য উপেন সরকার, মধুসূধন দত্ত, সঞ্জীব বিশ্বাস, নিতাই দাস, গোপাল আইচ, প্রকাশ ঘোষ, রবীন্দ্রনাথ দে, আশিস দে, বসু মল্লিক প্রমুখ। মালিকপক্ষের প্রতিনিধি হিসাবে উপস্থিত ছিল শংকরপ্রসাদ কর, সমীররঞ্জন দাস, জগন্নাথ আইচ, বাসুদেব দে। দ্বিপাক্ষিক আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করে শংকরপ্রসাদ কর। সিদ্ধান্ত হয় পূর্বস্থলী থানা এলাকার সমস্ত চিঁড়ে, মুড়ি, খইকলের শ্রমিকদের ১৫ শতাংশ হারে মজুরি বৃদ্ধি করা হবে, সঙ্গে ৫ শতাংশ হারে বোনাস দেওয়া হবে বলে মালিকপক্ষ ঘোষণা করেন।

কৃষকসভার নেতা রতন দাস বলেন—শ্রীরামপুরের চিঁড়ে, মুড়ি ও খইকলের শ্রমিকদের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হওয়াতে উভয়পক্ষ দায়িত্ববোধের পরিচয় দিয়েছেন। তিনি শ্রমিক ও মালিকপক্ষকে অভিনন্দন জানান। বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত দ্বিপাক্ষিক সভা চলে। বৃহস্পতিবার সকালে কলের সামনে জড়ো হন শ্রমিকরা এবং মিছিল করেন।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement