খুনের অভিযোগে
তৃণমূল নেতা গ্রেপ্তার

নিজস্ব সংবাদদাতা   ১২ই অক্টোবর , ২০১৮

মুরারই, ১১ই অক্টোবর — মুরারই-১ ব্লকের বাহাদুরপুর গ্রামের সি পি আই (এম) সমর্থক কমরেড গুণধর কর্মকারকে খুনের অভিযোগে ওই গ্রামের তৃণমূলের গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্যা হয়রানি মালের স্বামী খগেন মালকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বুধবার সন্ধ্যায় কাজ থেকে বাড়ি ফেরার সময় রাস্তায় একা পেয়ে গুণধর কর্মকারকে ভোজালি দিয়ে মারাত্মকভাবে পেটে বুকে আঘাত করে খগেন মাল।পরে পথচারীদের কাছে খবর পেয়ে তাঁর দাদা কুশ কর্মকার তাঁকে উদ্ধার করে রামপুরহাট হাসপাতালে ভর্তি করেন। রাতেই তাঁর মৃত্যু হয়। কুশ কর্মকার জানান, মৃত্যুর আগে গুণধর তাঁর জবানবন্দিতে বলেছেন, খগেন মাল তাঁকে খুন করেছে। রাতে পুলিশকে এই খুনের অভিযোগ জানানো হয় মৌখিকভাবে। এদিকে খুন করে খগেন মাল গা ঢাকা দেয়।পরে পুলিশ তল্লাশি করে রাতেই অপরাধীকে গ্রেপ্তার করে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে পোস্টমর্টেম করে দেহ নিয়ে এলে শোকের ছায়া নেমে আসে গ্রামে। এদিনই মৃত গুণধর কর্মকারের স্ত্রী থানায় লিখিতভাবে খুনের অভিযোগ করেন তৃণমূল নেতা খগেন মালের বিরুদ্ধে। তিনি অভিযোগ করে জানান, আমার স্বামী রাজমিস্ত্রির কাজে বাইরে গিয়েছিলেন । সন্ধ্যার সময় সাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। তখনই খগেন মাল রাস্তায় হঠাৎ ভোজালি নিয়ে তাঁকে আক্রমণ করে। এবং পেটে বুকে আঘাত করে। পরে আশংকাজনক অবস্থায় রামপুরহাট হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানেই তিনি মারা যান। মৃত্যুর আগে খগেনের নাম তিনি বলেন। কি কারণে তাঁকে খুন করা হলো সেটা জানি না। আমি চাই আমার স্বামীর খুনির ফাঁসি দেওয়া হোক।

পুলিশ জানিয়েছে পুরানো আক্রোশ থেকেই তাঁকে খুন করা হয়েছে বলে অনুমান।এদিকে সি পি আই (এম) নেতা দুকড়ি রাজবংশী জানান, কমরেড গুণধর কর্মকার আমাদের পার্টির সমর্থক। আগে খগেন মালের স্ত্রী আমাদের প্রধান ও পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষও হয়েছিলেন। পরে দুর্নীতির অপরাধে তাঁকে বহিষ্কার করা হয়। বর্তমানে তিনি তৃণমূলের গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্যা। বকলমে কাজ করেন খগেন মাল। কি কারণে তাঁকে খুন হয়েছে তদন্ত করে বার করুক পুলিশ। একটি পরিবারকে শেষ করে দিল এই দুষ্কৃতী। খুনির শাস্তি চাই।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement