রাজ্যের অপদার্থতার প্রতিবাদে
বিক্ষোভ পঞ্চায়েতকর্মীদের

নিজস্ব প্রতিনিধি   ১২ই অক্টোবর , ২০১৮

কলকাতা, ১১ই অক্টোবর— শাসকের মরজিতে চলব না, চলব নির্দিষ্ট আইন মেনেই— সাফ জানিয়ে দিলেন পঞ্চায়েতকর্মীরা।

গত কয়েক বছর ধরেই নানাভাবে আক্রমণের শিকার রাজ্যের বিভিন্ন ক্ষেত্রের পঞ্চায়েতকর্মীরা। তাঁদের অভিযোগ, শাসকদল নিজেদের ইচ্ছামতো নিয়ম কানুন জারি করছে, চলছে হয়রানিমূলক বদলি, চলছে ছুটির ক্ষেত্রে তীব্র বঞ্চনা, ভোটের ডিউটির ক্ষেত্রে অমানবিকতা। এছাড়া পঞ্চায়েত স্তরে প্রায় ১১ হাজার শূন্যপদে নিয়োগের কোনও উদ্যোগ নেই রাজ্য সরকারের। অন্যদিকে ১০০ দিনের কাজে এসেছে চরম দুর্নীতি—যার ফল ভুগছেন সাধারণ গ্রামবাসীরা।

এসবের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার রাজ্য জুড়ে বিভিন্ন জেলায় পথে নেমে বিক্ষোভ দেখালেন পঞ্চায়েতকর্মীরা। প্রতিবাদ মিছিল ছাড়াও বিক্ষোভ সমাবেশ করে প্রশাসনের কাছে ডেপুটেশন দিলেন তাঁরা। আগামী ১৪ই ডিসেম্বর হবে পঞ্চায়েতদপ্তর অভিযান, জানালেন নেতৃবৃন্দ।

পশ্চিমবঙ্গ পঞ্চায়েত কর্মচারী সমূহের যৌথ কমিটির উদ্যোগে এদিন উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং থেকে শুরু করে দক্ষিণবঙ্গের হাওড়া, হুগলি, বাঁকুড়া, উত্তর চব্বিশ পরগনা, পূর্ব বর্ধমান, পশ্চিম মেদিনীপুর, বীরভূমসহ জেলাগুলিতে এই বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয়। জেলাগতভাবে কর্মরত পঞ্চায়েত কর্মীদের নিজস্ব দাবিদাওয়া ছাড়াও সামগ্রিকভাবে সরকারের বঞ্চনার বিহিত করার দাবি ওঠে এদিনের মিছিল সমাবেশ থেকে। তবে পুরুলিয়ায় আধিকারিকদের টালবাহানায় এদিন ডেপুটেশন দিতে পারেননি কর্মীরা।

এর আগে গত ৪ঠা অক্টোবর কোচবিহার ও দক্ষিণ দিনাজপুরে সমাবেশ ও ডেপুটেশন দেওয়া হয়েছে বলে জানান সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সন্দীপ রায়। তিনি বলেন, গ্রামে গ্রামে একশো দিনের কাজসহ নানা কাজের হিসাব বেশি করে দেখানো হচ্ছে। সেই হিসাবে শাসকদলের নেতাদের মরজিমতো ব্যাপক গরমিল চলছে। আর সেই অনুযায়ী ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে পঞ্চায়েতকর্মীদের। না হলেই নেমে আাসছে আক্রমণ, হামলা, অমানবিক মানসিক চাপ। কয়েকজন ইতোমধ্যে সেই চাপের শিকার হয়ে মারাও গিয়েছেন বলে খবর। এছাড়াও চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের অত্যন্ত কম ভাতা বরাদ্দ করছে সরকার। অনেক পঞ্চায়েত কর্মীকেই স্বাস্থ্যপ্রকল্পের আওতাভুক্ত করা হয়নি।

নেতৃবৃন্দের বক্তব্য, পঞ্চায়েত কর্মীদের ব্যাপক ক্ষোভ রয়েছে ছুটি নিয়েও। সরকারি নির্দেশে সমস্ত ছুটিগুলি বাতিল করা হচ্ছে পঞ্চায়েতকর্মীদের, অথচ সেই ছুটিগুলি রাজ্য সরকারের অন্যান্য দপ্তরে রয়েছে। পঞ্চায়েত মন্ত্রীকে বারবার চিঠি লিখেও কোনও জবাব মিলছে না। আর বকেয়া মহার্ঘভাতা নিয়ে তো কোনও উচ্চবাচ্যই করছে না সরকার। এর বিরুদ্ধেই পথে নেমেছেন কর্মীরা। আগামী ১৪ই ডিসেম্বর বিধাননগরে যুক্ত প্রশাসনিক ভবনের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করবেন পঞ্চায়েত কর্মীরা।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement