নারায়ণগড়ের ঘটনায় সি বি আই
চাইলেন নিহত তৃণমূলকর্মীর দাদু

নিজস্ব প্রতিনিধি   ১২ই অক্টোবর , ২০১৮

কলকাতা, ১১ই অক্টোবর—নারায়ণগড়ে তৃণমূল কংগ্রেসের অফিসে বোমা বিস্ফোরণে মৃত্যুর ঘটনায় সি বি আই তদন্ত চেয়ে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করল তৃণমূলকর্মীর পরিবারই। ওই ভয়ংকর বিস্ফোরণে সেখানে বোমা বাঁধার কাজে লিপ্ত তৃণমূলের সক্রিয় কর্মীরাই নিহত এবং আহতদের তালিকায় রয়েছে বলে আগেই প্রকাশ পেয়েছিল। সেই বিস্ফোরণের পর পুলিশ একেবারেই নীরব দর্শক হয়ে যায়। কাউকে গ্রেপ্তার বা কোনও মামলা দায়ের হয়নি পুলিশের পক্ষ থেকে। এর প্রকৃত কারণ জানতে চেয়ে বৃহস্পতিবার এক জনস্বার্থ মামলা দায়ের করে সি বি আই তদন্ত দাবি করলেন নিহত এক তৃণমূলকর্মীর দাদু দুর্গাচরণ পাত্র।

গত ২৩শে আগস্ট পশ্চিম মেদিনীপুরের নারায়ণগড়ে মকরমপুর বাজারের কাছে তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়ের ভেতরে ভয়ংকর এক বোমা বিস্ফোরণ হয়। ভয়াবহ সেই বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে চারপাশ। ছাদ উড়ে যায় ওই অফিসের। আশেপাশের বাড়িগুলিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বিস্ফোরণের সময়ে সেখানে তৃণমূলের একটি গোষ্ঠী ছিল বলে জানা যায়। ওই অঞ্চলের তৃণমূলের দুটি গোষ্ঠীই বিবাদমান। তাদেরই একটি গোষ্ঠী বোমা বানাচ্ছিল বলে প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ানে প্রকাশ পায়। বিস্ফোরণের পর কারো হাত পা উড়ে যায়। সেখানেই মৃত্যু হয় ২ জনের। তার একজন সুদীপ্ত ঘোষ ও অন্যজন বিকাশ ভুঁইয়া। পরে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ে।

সেই সময়েই এলাকায় তীব্র গুঞ্জন ওঠে তৃণমূলের কার্যকলাপ নিয়ে। পুলিশ ওই ঘটনার পর কাউকে গ্রেপ্তারও করেনি, মামলাও দায়ের করেনি। মৃত সুদীপ্ত ঘোষ তৃণমূলকর্মী হলেও তার স্ত্রী ও মা দলের এই কার্যকলাপে সেই সময়েই তীব্র বিরক্তি প্রকাশ করেন। কিন্তু এরপরেই সব ধামাচাপা পড়ে যায়। সমস্ত খবর চেপে দেওয়া হয় ওই এলাকার। বৃহস্পতিবার দুর্গাচরণ পাত্র নামে এক ব্যক্তি কলকাতা হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করে সি বি আই তদন্ত চান ওই ঘটনার। তিনি জানতে চান, যেখানে শাসকদল তৃণমূল এবং সেই তৃণমূল অফিসে বিস্ফোরণ হয়ে তৃণমূলকর্মীর মৃত্যু হয়েছে, তাহলে পুলিশ বা সরকার বা গোটা তৃণমূল দলটাই বা কেন চুপ করে থাকবে। ঘটনার সত্যতা সবার সামনে আসুক।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement