পাক টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার
ঐতিহাসিক ড্র

সংবাদসংস্থা   ১২ই অক্টোবর , ২০১৮

দুবাই, ১১ই অক্টোবর — পাকিস্তানকে জিততে দিল না আর এক পাকিস্তানিই। উসমান খোয়াজা। দুবাই টেস্টে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল ৭ উইকেট। সারাদিনে ৫ উইকেট নিতে সক্ষম হলেন পাকিস্তানের বোলাররা। অস্ট্রেলিয়ার ঢাল হয়ে দাঁড়ালেন খোয়াজা। ট্রাভিস হেডকে নিয়ে চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করেন। সেসময় স্কোর ১৬৩/৩। দিনের শেষে অস্ট্রেলিয়া ৩৬২/৮। ম্যাচ অমীমাংসিত।

হার বাঁচাতে শেষ দিন অন্তত ৯০ ওভার ব্যাট করতে হতো অস্ট্রেলিয়াকে। প্রথম সেশনের ২৯ ওভারে ক্রিজে কাটিয়ে দেয় খোয়াজা-হেড জুটি। মধ্যাহ্নভোজের পরই ট্রাভিস হেডের পতনে জুটি ভাঙে। ১৭৫ বলে ৭২ রান করেন হেড। লাবুশানের সঙ্গে ৩৩ এবং টিম পেইনের সঙ্গে ৭৯ রানের জুটি গড়েন খোয়াজা। রানের চেয়েও বেশি জরুরি ছিল ক্রিজে টিকে থাকা। অসি শিবিরে বড় ধাক্কা লাগে খোয়াজার উইকেটে। তখনও দিনের খেলায় প্রায় ১৫ ওভার বাকি। ৩০২ বলে ১৪১ রানের দায়িত্বশীল ইনিংস উপহার দেন উসমান। তাঁর পথেই ইনিংস এগিয়েছেন অধিনায়ক টিম পেইন। উলটোদিকে উইকেট পড়লেও বিপর্যয় আসতে দেননি। অস্ট্রেলিয়ার অষ্টম উইকেট পড়ে দলীয় ৩৩৩ রানে। দিনের খেলার তখনও ১৩ ওভারের মতো বাকি। নাথান লিয়নকে সঙ্গে নিয়ে বাকি সময়টা কাটিয়ে দিলেন পেইন। দিনের খেলার এক বল বাকি থাকতে দুই দল হাত মিলিয়ে নেয়। প্রথম ইনিংসে ৮৫। দ্বিতীয় ইনিংসে ১৪১। ম্যাচের সেরার পুরস্কার উসমান খোয়াজার দখলে।

উসমানের জন্ম পাকিস্তানের ইসালামাবাদে। পরিবার অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি দেয়। সে সময় উসমানের বয়স পাঁচ। অস্ট্রেলিয়ায় প্রাথমিক এবং উচ্চ শিক্ষা শেষে বিমানচালনা নিয়ে পড়াশোনা সম্পূর্ণ করেছেন। বিমানচালনার লাইসেন্সও রয়েছে। যদিও ক্রিকেট মাঠে অসি দলকে সঠিকপথে চালনার কাজটিতেই বেশি স্বচ্ছন্দ। উসমানের ব্যাটে ভর করেই ঐতিহাসিকভাবে হার বাঁচাল অস্ট্রেলিয়া। ২০১০-১১ অ্যাসেজে টেস্ট অভিষেক। ৩৪ টেস্টে প্রায় ৪৫ গড়ে করেছেন প্রায় আড়াই হাজার রান। দুবাইয়ের অনবদ্য ইনিংসের পর পাকিস্তানের এক সাংবাদিক সোশ্যাল সাইটে লিখেছেন, খোয়াজাকে পাকিস্তানের বোলাররা দ্রুত আউট করতে পারেননি কারণ, উসমানও উর্দু জানার ফলে পাক অধিনায়কের সমস্ত পরিকল্পনাই জানতে পারছিলেন।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement