ইমামের হামলাকারীদের গ্রেপ্তার না করায়
ফের পুলিশের গাড়ি আটকে বিক্ষোভ

নিজস্ব সংবাদদাতা   ৯ই নভেম্বর , ২০১৮

হরিণঘাটা, ৮ই নভেম্বর — প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে দুষ্কৃতীরা। পুলিশের দেওয়া প্রতিশ্রুতি মতো গ্রেপ্তার হয়নি কেউই। বুধবার সকালে রিভলভারের বাঁট দিয়ে মেরে হরিণঘাটার মোল্লাবেলিয়ায় এক মসজিদের ইমামকে জখম করার পর থেকেই ক্ষিপ্ত ওই এলাকার মানুষজন। বৃহস্পতিবার বিকেলে মোল্লাবেলিয়া পঞ্চায়েতের মিত্রপুর তেমাথার মোড়ে পুলিশের টহলদাড়ি তিনটি গাড়ি আটকিয়ে বিক্ষোভ দেখায় গ্রামবাসীরা। পুরুষদের পাশাপাশি বাড়ির মহিলারাও বেরিয়ে এসে পুলিশের গাড়ি আটকে রাখে। বিরাট উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। ইমামকে মারধর করাতে পাশের গ্রাম কদম্বগাছি, ধারালি থেকে বহু মানুষ বিক্ষোভে শামিল হন। পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার বিরুদ্ধে ক্ষোভ জানাতে থাকেন মানুষজন।

বুধবার সকালে মসজিদে ফেরার সময় আচমকাই হামলা চালায় জনা আটেক দুষ্কৃতী। ইমাম জামালউদ্দিন মণ্ডলকে মারধর করা হয়। খবর পেয়ে রাস্তায় বেরিয়ে আসে মানুষজন। সেদিনও গ্রামবাসীরা এই মারের প্রতিবাদে পুলিশের গাড়ি আটকেছিল। ইমামকে গ্রামীণ হাসপাতালে চিকিৎসা করিয়ে থানায় অভিযোগ জানাতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তার করবার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল পুলিশ। কিন্তু ২৪ঘণ্টার অপেক্ষার পর ফের রাস্তায় নামে মিত্রপুরের সাধারণ গ্রামের মানুষ। তৃণমূলের পঞ্চায়েত প্রাক্তন প্রধান আলাউদ্দিন মণ্ডলের ছেলে ফরিয়াদ মণ্ডলের নেতৃত্বে এই হামলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইমাম। দিনের আলোয় ইমামের ওপর হামলা দেখেছে গ্রামের মানুষ। তাঁর কানে রিভলভার ঠেকিয়ে মারধর করে ফরিয়াদ সহ বিদারুল মল্লিক, আনোয়ার মল্লিক মাসুবল মল্লিক সহ অন্য দুষ্কৃতীরা হামলা চালিয়েছে। জমি মাফিয়া হিসেবেই এলাকায় পরিচিত দুষ্কৃতীরা। কয়েকবছর ধরে গ্রামের মানুষের জমি বেনামে কেড়ে নেবার কারবার চালাচ্ছিল এই বাহিনী। প্রতিবাদ জানিয়েছিল ইমাম সহ গ্রামবাসীরা। সেই কারণেই ইমামের ওপর হামলা। পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার সুযোগে এই দুষ্কৃতীদের দৌরাত্ম্য বেড়েছে বলেই ক্ষোভ জানাচ্ছেন গ্রামের মানুষজন।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement