নাটকীয় জয় ম্যান ইউ-র,
সহজ ম্যান সিটি, রিয়ালের
বিতর্কে জড়ালেন মোরিনহো এবং র‌্যামোস

সংবাদসংস্থা   ৯ই নভেম্বর , ২০১৮

তুরিন, ৮ই নভেম্বর— তিন মিনিট মাত্র। এই সময়ই যথেষ্ট। জুভেন্টাসের থেকে জয় কাড়তে। ম্যাঞ্চেষ্টার ইউনাইটেডের নাটকীয় জয়ের পরেও নাটকের অভাব হয়নি।

তুরিনের মাঠে জুভেন্টাসের থেকে জয় ছিনিয়ে নেওয়া সহজ নয়। সেই কাজটাই করলো জোশ মোরিনহোর দল। মোরিনহোর আমলে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ জয় বললেও, অত্যুক্তি হবে না। শুরু থেকে ম্যাচের ছবি যদিও অন্যই ছিল। ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো, পাওলো দিবালা, কুয়াড্রাডোদের একতরফা আক্রমণে হাঁসফাস অবস্থা হয় ম্যান ইউ’র। একের পর এক গোলের সুযোগ। কিন্তু একটি থেকেও গোল করতে পারেনি জুভেন্টাস। শিকে ছেড়ে দ্বিতীয়ার্ধে। প্রাক্তন দলের বিরুদ্ধে সেই কাজটি করেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। মাঝমাঠ থেকে বোনুচ্চির বাড়ানো লম্বা বল মাটিতে পড়ার আগেই শট। গোল হওয়া ছাড়া দ্বিতীয় কোনও পথ ছিল না।

এর পরেও যে খেলার হাল ফেরে এমন নয়! জুভেন্টাস একটানা চাপ রেখেই খেলতে থাকে। মোক্ষম চাল দেন মেরিনহো। অ্যান্ডার হেরেরার বদলে জুয়ান মাতা এবং অ্যালেক্সিস স্যাঞ্চেজের বদলে মৌরানে ফেলাইনিকে মাঠে আনেন। এই দুটি বদলই খেলার অভিমুখ বদলায়। ৮৬ মিনিটে মাতার ফ্রিকিক থেকে সমতা ফেরে। তিন মিনিটের ব্যবধানে ফের গোল হজম করে জুভেন্টাস। অ্যাশলে ইয়ঙের ফ্রি-কিক জুভেন্টাস গোলরক্ষক সেঝনি থামিয়ে দিলেও, তা বোনুচ্চি এবং অ্যালেক্স সান্ড্রোর গায়ে লেগে গোলে প্রবেশ করে। স্যান্ড্রোর আত্মঘাতী গোলে হার নিশ্চিত হয় ওল্ড লেডি অব তুরিনের। ২০০৩ সালের পর থেকে জুভেন্টাস ঘরের মাঠে কখনোই হারেনি। টানা ৩৫ ম্যাচ অপরাজিত থাকার পর ম্যাঞ্চেষ্টার ইউনাইটেডের কাছে হার স্বীকার করল।

নাটকের অবশ্য সেখানেই শেষ নয়। সারাটা ম্যাচ ধরে সমর্থকরা ম্যান ইউ কোচকে তাতিয়েছেন। ম্যাচ শেষে মাঠে নেমে সমর্থকদের উদ্দেশ্যে ব্যঙ্গ করেন মোরিনহো। চিয়েলিনি তাঁকে আটকাতে চাইলে সেখানেও একপ্রস্থ বচসা হয়। মোরিনহোর সঙ্গে জুভেন্টাসের সমর্থকদের বিবাদ নতুন নয়। ইন্টার মিলানের কোচ থাকার সময় থেকেই এই মন কষাকষি। পরে মোরিনহো জানিয়েছেন, ‘আমায় নব্বই মিনিট ধরে অসম্মান করা হয়েছে। আমি নিজের কাজ ছাড়া আর কিছু করি না। কাউকে অসম্মান করি না। আমি শুধু একটু অঙ্গভঙ্গি করেছিলাম যে আমি ওদের থেকে কিছু শুনতে চাই। একজন পেশাদার কোচ হিসেবে এখানে এসেছিলাম। কিন্তু আমার পরিবারকে অসম্মান করা হয়েছে। সেই কারণেই আমি প্রতিক্রিয়া দিয়েছি।’

ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড নাটকীয় জয় পেলেও, প্রতিপক্ষকে বিধ্বস্ত করেছে ম্যাঞ্চেষ্টার সিটি ও রিয়াল মাদ্রিদ। শাখতার ডনেস্ককে আধডজন গোলের মালা পরিয়েছে ম্যান সিটি। গ্যাব্রিয়েল জেসাসের তিনটি গোল ছাড়াও একটি করে গোল করেছেন ডাভিড সিলভা, রহিম স্টার্লিং এবং মাহরেজ। এই জয়ের ফলে চার ম্যাচে নয় পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষ স্থান পাকা করল। যদিও নক আউটে যাওয়ার ছাড়পত্র আদায় করতে পারেনি পেপ গুয়ার্দিওলার দল। একইরম সহজ জয় ছিনিয়ে নিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। জুলেন লোপেতেগুই ছাটাই হওয়ার পর একের পর এক ম্যাচে জয়ের বাদ্যি বেজেই চলেছে। এবার ভিক্টোরিয়া প্লাজেনকে হারালো লস ব্লাঙ্কোস। করিম বেঞ্জেমার জোড়া গোল ছাড়াও একটি করে গোলকরেছেন কাসেমেইরো, টনি ক্রুজ ও গ্যারেথ বেল। সহজ জয় সত্ত্বেও বিতর্কে জড়িয়েছেন রিয়াল অধিনায়ক সার্জিও র‌্যামোস। ম্যাচের তেরো মিনিটে রামোসের কনুইয়ের আঘাতে প্লাজেনের ফুটবলার মিলান হাভেলের নাক থেকে রক্তক্ষরণ হয়।শুরু যার প্রেক্ষিতে হলুদ কার্ড দেখার মতো দোষ করলেও, হলুদ কার্ড দেখানো হয়নি তাঁকে। পরে র‌্যামোস জানিয়েছেন, ‘এরকম আঘাত করার কোনও ইচ্ছা ছিল না। একজন পেশাদার হয়ে আরেকজনকে কখনোই না।’

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement