২০০৩ মনে পড়ল শচীনের

সংবাদসংস্থা   ১১ই ডিসেম্বর , ২০১৮

নয়াদিল্লি, ১০ ডিসেম্বর— অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে দাঁড়িয়ে টেস্টে অসিদের হারানোর মতো দিন রোজ রোজ আসে না। বিরাট কোহলি অ্যান্ড কোম্পানির দুর্ধর্ষ জয়ের পর প্রাক্তনরা অভিভূত। শচীন তেন্ডুলকার ২০০৩ সালের স্মৃতিতে ফিরলেন। সেবার রাহুল দ্রাবিড় ও অজিত আগরকার মিলে ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ের সাক্ষী রেখেছিলেন দেশবাসীকে। তাঁর একদা ওপেনিং সঙ্গী বীরেন্দ্র সেওয়াগ তো ম্যাচ দেখে নতুন করে টেস্টের প্রেমে পড়ছেন। সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, ভিভিএস লক্ষ্মণ বা হরভজন সিং— প্রত্যেকের মুখেই ভারতের জন্য প্রশংসা।

সোমবার শেষ উইকেটে ন্যাথান লিয়ন ও জশ হ্যাজলউড ভারতীয় সমর্থকদের রক্তচাপ বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। শেষমেশ রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বলে হ্যাজলউড ক্যাচ দিতেই প্রথম টেস্টের পর ১-০ এগিয়ে যান রবি শাস্ত্রীর ছেলেরা। উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করে শচীন সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখেন, ‘সিরিজের কী দুরন্তভাবে সূচনা! টিম ইন্ডিয়া চাপ কখনও সরতে দেয়নি। চেতেশ্বর পূজারা অনবদ্য ব্যাট করল। দু’ইনিংসেই গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে। সেই সঙ্গে রাহানেও দ্বিতীয় ইনিংসে ভালো ব্যাট করল। আমাদের চার বোলারই জয়ে ভূমিকা রাখল। ২০০৩ সালের স্মৃতি ফেরাল এই জয়।’ ম্যাচ শেষ হতে না হতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় শুভেচ্ছাবার্তার ভিড় জমতে শুরু করে। বীরেন্দ্র সেওয়াগও দেরি করলেন না। ট্যুইটারে তিনি লেখেন, ‘টেস্ট ক্রিকেটই বেস্ট ক্রিকেট। শেষে অস্ট্রেলিয়া খুব ভালো লড়াই দিল। তবে ভারত ছাপিয়ে গিয়েছে। প্রথম ইনিংসে ৪১-৪ থেকে লড়াই করে ম্যাচ জিততে বিশেষ প্রচেষ্টা থাকতে হয়। পূজারার জন্য ম্যাচটা দুর্দান্ত গেল। অসাধারণ একটা সিরিজ হতে চলেছে।’ তাঁর একদা অধিনায়ক সৌরভ জানালেন, ‘দারুণ জয়। হাড্ডাহাড্ডি এবং প্রতিযোগিতায় মোড়া একটা সিরিজ হতে চলেছে। সব ক’টি ম্যাচেরই ফলাফল হবে।’

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে রাহুল দ্রাবিড়ের সঙ্গে যদি কেউ বিপক্ষকে দমানোর ক্ষমতা রাখতেন শেষ দশকে তিনি ভিভিএস লক্ষ্মণ। ট্যুইটারে লিখলেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার লোয়ার অর্ডার অবিশ্বাস্য সাহসিকতা দেখাল। তবে এই মুহূর্ত ভারতীয় দল দীর্ঘদিন মনে রাখবে। বোলাররা সর্বস্ব দিল। শুধু ম্যাচগুলো উপভোগ করে যান।’ তাঁর দীর্ঘদিনের ভারতীয় দলের সতীর্থ হরভজন আবার লিখলেন, ‘ভারতীয় দলকে অনেক শুভেচ্ছা। কী অসাধারণ শুরুটা হলো সিরিজের! চেতেশ্বর পূজারা এবং বোলাররা অসাধারণ কৃতিত্বের পরিচয় দিল।’

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement