সিরিয়া থেকে মার্কিন
সেনা প্রত্যাহার শুরু

সংবাদসংস্থা   ১২ই জানুয়ারি , ২০১৯

বাগদাদ, ১১ জানুয়ারি— সিরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু করল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

গত মাসে সিরিয়া, আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের কথা ঘোষণা করে তোলপাড় ফেলে দিয়েছিলেন ট্রাম্প। শুক্রবার থেকে সেকাজ শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিরিয়ায় আইসিস বিরোধী মার্কিন সামরিক জোটের মুখপাত্র সন রায়ান।

‘সিরিয়া থেকে আমাদের পরিকল্পিত প্রত্যাহারের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।’ জানিয়েছেন রায়ান। তবে ‘সঠিক সময়, স্থান কিংবা বাহিনীর গতবিধি’ সম্পর্কে বিস্তারিত কোনও তথ্য তিনি প্রকাশ করেননি।

ব্রিটেন কেন্দ্রিক সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, প্রত্যাহারের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বৃহস্পতিবার রাত থেকে। তাদের তথ্য, দশটি সাঁজোয়া গাড়ির একটি কনভয় ছিল। তার বাইরে ছিল ট্রাক। সিরিয়ার উত্তরপূর্বাঞ্চলের শহর দিয়ে তারা ঢুকছে ইরাকে।

সবাইকে অন্ধকারে রেখে ডিসেম্বরের ১৯ তারিখ হঠাৎ করেই সিরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহারের কথা ঘোষণা করে দেন ট্রাম্প। মার্কিন কংগ্রেসের প্রতিনিধিরা তো দূরঅস্ত, পেন্টাগন থেকে শুরু করে যারা যৌথভাবে লড়াই করছে, সেই আন্তর্জাতিক মিত্রদের পর্যন্ত জানানো হয়নি। যেমন বরাবার করে থাকেন, তেমনই এক টুইটে ট্রাম্প জানিয়ে দেন সেনা সরানোর কথা। সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেটকে পরাস্ত করা গিয়েছে, এমন দাবিও করেন। টুইটারে এক সংক্ষিপ্ত ভিডিও’তে ট্রাম্প বলেন, ‘আইসিসের বিরুদ্ধে আমরা জয়ী হয়েছি। আমরা তাদের পরাস্ত করেছি। আমরা তাদের বাজেভাবে পরাজিত করেছি। ইসলামিক স্টেটের দখল করা জমি আমরা পুনরুদ্ধার করেছি। এখন আমাদের সেনাদের বাড়ি ফেরার পালা।’

হতবাক হয়ে যায় মার্কিন সংবাদমাধ্যম। টাইমের মতোই ওয়াশিংটন পোস্টের শিরোনাম, ‘মাত্র একটি টুইটেই, মধ্যপ্রাচ্যের জন্য মার্কিন নীতিকে গুঁড়িয়ে দিলেন ট্রাম্প।’ মার্কিন বিদেশদপ্তর থেকে প্রতিরক্ষাদপ্তর ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত ছিলেন না। তাদের বক্তব্য, যুদ্ধ এখনও বাকি। বিভিন্ন অংশে এখনও সক্রিয় সন্ত্রাসবাদী শক্তি। ম্যাটিস সতর্ক করেছিলেন, সিরিয়া থেকে আগাম সেনা প্রত্যাহার হবে একটি ‘স্ট্র্যাটিজিক ভ্রান্তি’। শেষ মুহূর্তে গিয়েও রাষ্ট্রপতিকে সেকথা বুঝিয়েছিলেন প্রাক্তন প্রতিরক্ষাসচিব জেমস ম্যাটিস। ট্রাম্প শোনেননি, একমত হননি। তারপরেই ট্রাম্প টুইটে জানিয়ে দেন, ‘ফেব্রুয়ারির শেষে, সসম্মানে অবসর নিতে চলেছেন’ তাঁর প্রতিরক্ষাসচিব।

সিরিয়াতে যে ২,০০০ মার্কিন সেনা রয়েছে, তার পুরোটাই সরিয়ে আনার কথা জানিয়েছিলেন ট্রাম্প। এবং সবাইকেই ফিরিয়ে আনা হচ্ছে।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement