আজকের দিনে



 

ছবির খাতা

জনতার ব্রিগেড

আরো ছবি

ভিডিও গ্যালারি

Video

শ্রদ্ধাঞ্জলি

 

শতবর্ষে শ্রদ্ধা

আপনার রায়

গরিবের পাশে থেকেছে বামফ্রন্টই

হ্যাঁ
না
জানি না
 

ই-পেপার

Back Previous Pageমতামত

মাদ্রাসায় শিক্ষক নিয়োগে দলবাজির
অভিযোগ, ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা

নিজস্ব সংবাদদাতা

ধূপগুড়ি, ৮ই আগস্ট — ধূপগুড়ি ব্লকের শালবাড়ি ১ নং গ্রাম পঞ্চায়েতে একটি মাদ্রাসা চালু করা নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস ও গ্রামবাসীদের মধ্যে বিবাদ বাধে। অভিযোগ, বিবাদ চলাকালীন ওই মাদ্রাসার তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থক এক শিক্ষক স্কুলে আগুন ধরিয়ে দেবার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে বানারহাট থানা থেকে পুলিস আসে। জানা গেছে, ওই গ্রাম পঞ্চায়েতের উত্তর শালবাড়ি গ্রামের মসজিদপাড়ায় স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতা জাকির হোসেন নিজস্ব প্রভাব খাটিয়ে মাসখানেক আগে নিজেদের জমিতে মাদ্রাসা খোলার অনুমতি আদায় করে নেয়। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, ওই তৃণমূল কংগ্রেস নেতা জাকির হোসেন তার মাকে পরিচালন কমিটির সম্পাদক ও এলাকার তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি ভরত রায়কে সভাপতি এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে একটি প্রস্তুতি কমিটি তৈরি করে। মাদ্রাসাটির অনুমোদনের জন্য জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শকের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয় এবং অনুমোদনের জন্য ১৯ নম্বরে স্থান পায়। স্কুলটি চালু হলে দেখা যায়, মাদ্রাসার পরিচালন সমিতির সভাপতি ভরত রায়কেই প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছে। এছাড়াও এলাকার বেশ কয়েকজন তৃণমূল কংগ্রেস নেতা, এমনকি এলাকার প্রধান রবি সরকারকেও শিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছে। এই ঘটনায় গ্রামবাসীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। তাঁদের দাবি এলাকায় অনেক সংখ্যালঘু উচ্চ শিক্ষিত বেকার যুবক রয়েছেন। তাঁদের বাদ দিয়ে বেআইনীভাবে শিক্ষক নিয়োগ করার প্রতিবাদ জানান তাঁরা। যোগ্যতার ভিত্তিতেই শিক্ষক নিয়োগের দাবি ওঠে। এরপর থেকেই এলাকার তৃণমূল কংগ্রেসের নেতাদের সাথে গ্রামবাসীদের বিবাদ শুরু হয়। পরিস্থিতি সামাল দিতে বানারহাট থানার আই সি দু’বার বৈঠকও ডাকেন। গ্রামবাসীদের অভিযোগ আই সি-র কিছু বিতর্কিত ও পক্ষপাতমূলক মন্তব্যে পরিস্থিতি আরোও জটিল হয়। তৃণমূল কংগ্রেসের নেতৃবৃন্দের বক্তব্যকেই আই সি সরাসরি সমর্থন করে বলে গ্রামবাসীদের অভিযোগ।

বুধবার সকালে গ্রামের বেশ কিছু মানুষ ওই মাদ্রাসার শিক্ষক রবি সরকারের সাথে কথা বলতে আসেন। কিন্তু তিনি কথা শুনতে অস্বীকার করলে গ্রামবাসীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। অভিযোগ, এই সময় মাদ্রাসায় নিযুক্ত তৃণমূল কংগ্রেসের শিক্ষকেরা লাঠিসোঁটা নিয়ে গ্রামবাসীদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। বচসা চলাকালীন ওই শিক্ষক স্কুলের শ্রেণীকক্ষের পাটকাঠির বেড়াতে তেল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরিকল্পিতভাবে আগে থেকেই স্কুলে কেরোসিন তেল এনে রাখা হয়েছিলো। যদিও আগুন ছড়াতে পারেনি। আতঙ্কে ছাত্রছাত্রীরা শ্রেণীকক্ষ থেকে দৌড়ে বাইরে বেরিয়ে আসে। এই সময় কয়েকজন পড়ুয়া জখম হয়। খবর পেয়ে বানারহাট থানার পুলিস আসে। এলাকায় উত্তেজনা রয়েছে।

মতামত
এই খবরটি সম্পর্কে আপনার মতামত
 

আমাদের এই খবরটি সম্পর্কে আপনার মতামত পেলে বাধিত থাকব। তবে যথাযথ যাচাই না করে ২৪ঘন্টার আগে আপনার মতামত ওয়েবসাইটে দেখা যাবে না।

Top
 
Name
Email
Comment
For verification please enter the security code below