বন্ধু ব্লেকের প্রতি শ্রদ্ধাশীল বোল্ট

সংবাদ সংস্থা

লন্ডন : ১১ই আগষ্ট— ‘বোল্ট জাগো, দেখো কী হতে চলেছে। আমি তোমাকে হারিয়ে দিচ্ছি। এবার তোমার জেগে দেখার সময়। ওলিম্পিক্স সদর দরজায় কড়া নাড়ছে।’ বন্ধু ব্লেকের প্রতি শ্রদ্ধাশীল উসেইন বোল্ট। বোল্টের কথায়, ‘ওলিম্পিক্সের তিন সপ্তাহ আগের ট্রায়ালে ব্লেক যদি আমায় না হারাতো, তাহলে হয়তো ওলিম্পিক্সের আসরে আমার সোনা জেতা হতো না। বন্ধু ব্লেক সেদিন আমাকে হারিয়ে কী উপকার করেছে তা বলার কথা নয়।’ শুধু তাই নয় এরপরেই বোল্ট তাঁর কোচের কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করেন, ‘কোচ আমি কী আদৌ প্রস্তুত ওলিম্পিক্সের জন্য’। কোচ গ্রেন মিলস তাঁকে বলেন, ‘সামনের তিন সপ্তাহ কঠিন সময়। এই সময়ের নিজেকে তৈরি করতে হবে।’ অনুশীলনে বোল্ট যখন দৌড়াতেন, তখন ব্লেককে সামনে রাখতেন বোল্ট। যাতে তাঁকে হারানোর মতো শক্তি অর্জন করতেন। মানসিকভাবে তৈরি হতেন। সেদিনের সেই ট্রায়ালে পরাজয় বন্ধু ব্লেকের কাছে কৃতজ্ঞ বোল্ট।

ওলিম্পিক্সের আসরে ইংরাজি দৈনিকে সাক্ষাৎকারে বোল্ট একান্তেই বন্ধুর ব্লেকের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করেছেন। ১০০ ও ২০০ মিটারের সোনা জয়ের পর বোল্টের লক্ষ্য ৪x১০০ মিটার রিলেতে সোনা জয়। সঙ্গে বিশ্বরেকর্ড। কারণ ওলিম্পিক্সের আসরে সোনা জিতলে কোনো রেকর্ডের অধিকারী নন জামাইকান বিদ্যুৎ। এখন তাই লক্ষ্য রিলেতে একটা নজির স্থাপন করা। শনিবার অধিক রাতে বোল্টের রিলে দৌড়। সেই দৌড়ের প্রতীক্ষায় প্রহর গুনছে গোটা বিশ্ব। এখানেই শেষ নয়, নিজের অন্যতম সেরা ইভেন্টের দিকে তাকিয়ে বোল্টও।

কার্ল লিউসের সঙ্গে তাঁর আর কোনো সখ্যতা নেই। জামাইকার অ্যাথলিটদের নিয়ে ডোপের মন্তব্যের পর কার্ল লিউস তোপ দেগেই ক্ষান্ত থাকেননি, রিলেতে সোনা জয়ের জন্য তাঁকে আরও উজ্জীবিত করেছে। রিলের দলের প্রাথমিক দৌড়ে ছিলেন না বোল্ট। সতীর্থরা তাঁকে বিশ্রাম দিয়েছেন, সোনা জয়ের জন্য। ওলিম্পিক্সের সমাপ্তির প্রাক্কালে বোল্টের রিলেতে সোনা তাঁকে ইতিহাসের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দেবে। নয়টি সোনার পদক নিয়ে কার্ল লিউস এখনও ইতিহাস। রিলেতে সোনা পেলে বোল্টের দুটো ওলিম্পিক্সে ছয়টি সোনার পদক হবে। যদিও ১০০ ও ২০০ মিটার সোনা জয়ের পর বোল্ট রীতিমতো কিংবদন্তী। কারণ এখনও কারোর নেই সেই ইতিহাস। নেই কার্ল লিউসেরও। রিলের সোনার জন্য তাই কাতর প্রতীক্ষা।

বেজিঙ ওলিম্পিক্সে মার্কিনী সাঁতারুর সঙ্গে তুলনা হচ্ছিলো বোল্টের। কিন্তু লন্ডনে আর ফেলপস নেই, শুধুই বোল্ট। বোল্টের ওলিম্পিক্স হতে চলেছে লন্ডন।

Featured Posts

Advertisement