আজকের দিনে



 

ছবির খাতা

জনতার ব্রিগেড

আরো ছবি

ভিডিও গ্যালারি

Video

শ্রদ্ধাঞ্জলি

আন্তর্জাতিক

কলকাতা

জেলা

 

শতবর্ষে শ্রদ্ধা

আপনার রায়

গরিবের পাশে থেকেছে বামফ্রন্টই

হ্যাঁ
না
জানি না
 

ই-পেপার

Back Previous Pageমতামত

উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহন
ডি এম-এর বিরুদ্ধে তুঘলকি
আচরণের অভিযোগ কর্মীদের

নিজস্ব সংবাদদাতা

শিলিগুড়ি, ১৮ই আগস্ট — উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থার ডিভিসনাল ম্যানেজারের বিরুদ্ধে তুঘলকি আচরণের অভিযোগ আনলেন কর্মীরা। সংস্থার বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে স্বীকৃত ইউনিয়নগুলির পক্ষ থেকে ডিভিসনাল ম্যানেজারকে বিভিন্ন সময়ে আলোচনার জন্য চিঠি দেওয়া হলেও তিনি তা প্রাপ্তিস্বীকার করে কোনো চিঠি দেবার ন্যূনতম সৌজন্য দেখাননি।

উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থার কর্মচারীদের অভিযোগ, কর্মীদের ন্যায্য পাওনা, ছুটি দেবার বিষয়েও কর্তৃপক্ষ নানাভাবে অনীহা প্রকাশ করছে। ক্যাজুয়াল লিভের জন্য তিনদিন আগে দরখাস্ত করার নির্দেশ জারি করা হয়েছে। সাপ্তাহিক ছুটি নেই। উপরন্তু কাজের বোঝা বাড়ানো হচ্ছে। ফলে কর্মচারীরা শারীরিক ও মানসিকভাবে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন। ১৬ ই জুলাই মেমো নং ৫২১/এস টি সি/এস এল জি আদেশ বলে ৯জন এল ডি সি-কে শিলিগুড়ি বিভাগীয় ও ডিপো অফিস থেকে তেনজিং নোরগে বাস টার্মিনালে বদলি করা হয়। ওই মেমোর আদেশবলে যে-সমস্ত কনডাক্টর তেনজিং নোরগে বাস টার্মিনালে ছিলেন তাঁদের ডিপোতে বদলি করা হয়। উদ্দেশ্য ছিল কনডাক্টর দিয়ে লাইন করানো। কিন্তু সংস্থার সমস্ত নিয়মনীতিকে লঙ্ঘন করে লোয়ার ডিভিসন ক্লার্কদের নিয়ে তেনজিঙ নোরগে বাস টার্মিনালে বুকিং কনডাক্টরের কাজ করানো হচ্ছে।

অভিযোগ, ডিভিসনাল ম্যানেজারের কোনো স্নেহভাজন কনডাক্টর যাকে তেনজিঙ নোরগে বাস টার্মিনাল থেকে ডিপোতে আনা হয়েছে, তাকে দিয়ে কনডাক্টরের কাজ না করিয়ে অন্য কাজ করানো হচ্ছে। যা তার কাজের মধ্যে পড়ে না। স্বজনপোষণের চূড়ান্ত নির্দশন চলছে। কর্মচারীদের অভিযোগ, সংস্থায় শারীরিকভাবে অক্ষম যে-সমস্ত চালক রয়েছেন তাঁরা সংস্থার সার্কুলার অনুযায়ী ভি আর এস চাইলেও তা দেওয়া হচ্ছে না। উলটে তাদের শো-কজ করা হচ্ছে। ওইসব কর্মীদের একসময়ে বাধ্যতামূলকভাবে ছুটিতে পাঠিয়ে তাদের ছুটি শেষ করে দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ, ডিভিসনাল ম্যানেজার এখন তাদের বলছেন মাসে ১৫দিন কাজ দেওয়া হবে। তবে বাকি ১৫ দিন বিনা বেতনে ছুটি নিতে হবে।

সংস্থার প্রায় ২৮০০ অবসরপ্রাপ্ত কর্মী রাজ্য সরকারী কর্মচারীদের মতো পেনশন পেয়ে থাকেন। বর্তমান সরকারের আমলে সেই পেনশন ছেঁটে দিয়ে ৫০% করে ছ’মাসের পেনশন দু’বারে দিয়েছে। এই নীতির বিরুদ্ধে কর্মীরা আদালতে যান। আদালতের রায়কেও কর্তৃপক্ষ মানছে না। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে অধিক সংখ্যায় গাড়ি চলছে না। শৃঙ্খলার অজুহাত দেখিয়ে ৫০ জনের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়েছে বলে অভিযোগ। কর্মচারীরা মনে করেন এভাবে এতো বড় একটা পরিবহন শিল্প প্রতিষ্ঠান চলতে পারে না। তাঁরা অবিলম্বে কর্তৃপক্ষকে শ্রমিক সংগঠনগুলোর সাথে আলোচনায় বসার দাবি জানিয়েছেন।

মতামত
এই খবরটি সম্পর্কে আপনার মতামত
 

আমাদের এই খবরটি সম্পর্কে আপনার মতামত পেলে বাধিত থাকব। তবে যথাযথ যাচাই না করে ২৪ঘন্টার আগে আপনার মতামত ওয়েবসাইটে দেখা যাবে না।

Top
 
Name
Email
Comment
For verification please enter the security code below