আজকের দিনে



 

ছবির খাতা

জনতার ব্রিগেড

আরো ছবি

ভিডিও গ্যালারি

Video

শ্রদ্ধাঞ্জলি

 

শতবর্ষে শ্রদ্ধা

আপনার রায়

গরিবের পাশে থেকেছে বামফ্রন্টই

হ্যাঁ
না
জানি না
 

ই-পেপার

Back Previous Pageমতামত

বেসরকারীকরণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে
দেশজুড়ে স্তব্ধ ব্যাঙ্ক

নিজস্ব প্রতিনিধি

কলকাতা, ২২শে আগস্ট— বুধবার সকাল থেকে ৪৮ঘণ্টার জন্য স্তব্ধ হয়ে গেলো গোটা দেশের ব‌্যাঙ্কব‌্যবস্থা। গত ২২বছরে এই নিয়ে ৩০বারের জন্য। কেন্দ্রের কংগ্রেস-তৃণমূল জোট সরকারের নয়া-উদারবাদী নীতিকে স্পষ্ট হুঁশিয়ারি ১০লক্ষ ব‌্যাঙ্ক অফিসার-কর্মচারীর — দেশের আর্থিক ক্ষেত্রকে বহুজাতিক হাঙর ও একচেটিয়া রাঘববোয়ালদের মৃগয়াভূমি করতে আমরা দেব না! নয়া-উদারবাদী নীতির বিরুদ্ধে ঠিক একই সময়কালে দেশের শ্রমিকশ্রেণীও ঐক্যবদ্ধভাবে ১৪বার সাধারণ ধর্মঘটে শামিল হয়েছেন। জনবিরোধী এই নীতির বিরুদ্ধে দেশের সাধারণ মানুষের জেহাদ ক্রমশ আরো স্পষ্ট।

এদিন সফল ও সর্বাত্মক ধর্মঘটে শামিল হয়ে একই সঙ্গে জানিয়ে দিয়েছেন ব‌্যাঙ্ক কর্মচারী ও অফিসারদের যৌথ আন্দোলনের মঞ্চ ইউনাইটেড ফোরাম অব ব্যাঙ্ক ইউনিয়নস্‌ (ইউ এফ বি ইউ)-এর নেতৃবৃন্দ, কেন্দ্রীয় সরকার যদি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কশিল্পকে বেসরকারীকরণ ও সঙ্কুচিত করার লক্ষ্য থেকে পিছিয়ে না আসে, তবে আগামীদিনে আরো বৃহত্তর আন্দোলনের প্রস্তুতি নেবেন তাঁরা। ব‌্যাঙ্ককর্মীদের এই ঐক্যবদ্ধ ও এককাট্টা লড়াইয়ের প্রতি সমর্থন ও সংহতি জানিয়েছে সি আই টি ইউ। ব‌্যাঙ্ক ধর্মঘটের সমর্থনে সারা দেশেই দপ্তরে দপ্তরে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন জীবন বীমা ও সাধারণ বীমার কর্মীরা, নাবার্ড ও রিজার্ভ ব‌্যাঙ্ককর্মীরা।

এদিন সকাল থেকেই দেশের সবকটি মেট্রো শহরে ব‌্যাঙ্কব‌্যবস্থা একেবারেই অচল হয়ে পড়ে। রাজধানী দিল্লিতে কোনো ব‌্যাঙ্কের গেটে তালা খোলেনি। দেশের আর্থিক রাজধানী মুম্বাইতে শুনশান ছিল দালাল স্ট্রিট। সবকটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব‌্যাঙ্ক এবং বেসরকারী ব‌্যাঙ্ক এদিন লেনদেনে না নামায় শেয়ার বাজার, বিদেশী মুদ্রার বাজারে কার্যত কোনো কাজ হয়নি। দেশের কোনো ক্লিয়ারিং হাউস খোলা না থাকায় এদিন কোনো চেক-এর ক্লিয়ারিং হয়নি। প্রতিদিন প্রায় ১৫হাজার কোটি টাকার ক্লিয়ারিং হয় সারা দেশে। এদিন তা হয়নি। বৃহস্পতিবারও হবে না। এমনকি, সর্বাত্মক ধর্মঘটের ফলে এ টি এম পরিষেবাও এদিন রাত থেকেই কার্যত অচল হয়ে যেতে বসেছে। যদিও অধিকাংশ রাষ্ট্রায়ত্ত ব‌্যাঙ্কই এ টি এম পরিষেবা বেসরকারী সংস্থার কাছে আউটসোর্সিং করে দিয়েছে। কলকাতা, চেন্নাই, বেঙ্গালুরু, আমেদাবাদ, হায়দরাবাদ, নাগপুর, চণ্ডীগড়, তিরুবনন্তপুরম, পাটনা, রাঁচি, ভুবনেশ্বর, গুয়াহাটি, আগরতলাসহ সর্বত্রই এদিন ব‌্যাঙ্কের গেট বন্ধ ছিল। সকালবেলায় গেটে গেটে পিকেটিং করে স্লোগান দিতে দেখা যায় ব‌্যাঙ্ককর্মীদের। বড় বড় মিছিল হয় বিভিন্ন শহরে। গেটসভা, পথসভা করে ধর্মঘটের দাবিগুলি ব‌্যাখ‌্যা করেন নেতৃবৃন্দ। সংসদের বাদল অধিবেশনেই ‘ব্যাঙ্কিং আইন (সংশোধনী) বিল, ২০১১’ পেশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। কেন্দ্রীয় সরকারের এই দেশবিরোধী এবং কর্মীস্বার্থবিরোধী পদক্ষেপের বিরুদ্ধে ২২-২৩শে আগস্ট দেশজুড়ে দু’দিনের ব্যাঙ্ক ধর্মঘটের সিদ্ধান্ত নেয় ব‌্যাঙ্ক কর্মচারীদের ৫টি ও অফিসারদের ৪টি সংগঠনের যৌথ আন্দোলনের মঞ্চ ইউ এফ বি ইউ।

ইউ এফ বি ইউ-র অন্যতম নেতা এবং ব্যাঙ্ক এমপ্লয়িজ ফেডারেশন অব ইন্ডিয়ার সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ বিশ্বাস এদিন সর্বাত্মক ধর্মঘটের জন্য ব‌্যাঙ্ককর্মীদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, বিদেশী বহুজাতিক ও দেশীয় একচেটিয়া পুঁজিপতিদের স্বার্থে নেওয়া এই ব্যাঙ্কিং বিল প্রত‌্যাহারের দাবিতে শুধু এই দু’দিনের ব‌্যাঙ্ক ধর্মঘটেই ব‌্যাঙ্ককর্মীরা থেমে থাকবেন না, প্রয়োজনে আরো ধর্মঘটের পথে আগামীদিনে তাঁরা যেতে বাধ্য হবেন। তিনি একই সঙ্গে সংসদে বামপন্থী সাংসদদেরও ধন্যবাদ জানিয়েছেন এই জন্য যে তাঁরা দেশের আর্থিক ক্ষেত্রে নয়া-উদারবাদী সংস্কারের বিরুদ্ধে ধারাবাহিকভাবে সংসদের অভ্যন্তরে লড়াই করে চলেছেন।

এদিন সি আই টি ইউ-র সাধারণ সম্পাদক তপন সেন এক বিবৃতিতে ব‌্যাঙ্কর্মীদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, কেন্দ্রীয় সরকারের এই সর্বাত্মক ধর্মঘট থেকে শিক্ষা নেওয়া উচিত। সি আই টি ইউ-র পশ্চিমবঙ্গ কমিটির সাধারণ সম্পাদক কালী ঘোষও এদিন বলেন, আর্থিক ক্ষেত্রে নয়া-উদারবাদী সংস্কারের বিরুদ্ধে ব‌্যাঙ্ককর্মীদের এই লড়াইয়ের পাশে রয়েছে সি আই টি ইউ। পাশে রয়েছেন সরকারী কর্মচারীরাও, জানিয়েছেন অল ইন্ডিয়া স্টেট গভর্নমেন্ট এমপ্লয়িজ ফেডারেশন-এর সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম‌্যান সুকোমল সেন।

পশ্চিমবঙ্গে এদিন ব‌্যাঙ্ক ধর্মঘট ছিল সর্বাত্মক। কোনো ব‌্যাঙ্কের শাখা বা দপ্তরে এদিন তালা খোলেনি। সর্বত্র পিকেটিং, মিছিল, সভা হয়েছে। কলকাতায় এদিন বিশাল মিছিল হয় বি-বা-দী বাগ চত্বরে। ইউ এফ বি ইউ নেতৃবৃন্দ শামিল হন মিছিলে। ধর্মঘটের সমর্থনে রিজার্ভ ব‌্যাঙ্ক ও নাবার্ড-এর কলকাতা দপ্তরেও এদিন বিক্ষোভ সভা হয় বলে জানিয়েছেন ব‌্যাঙ্ক এমপ্লয়িজ ফেডারেশন, পশ্চিমবঙ্গ-র সম্পাদক জয়দেব দাশগুপ্ত। বি-বা-দী বাগে ন‌্যাশনাল ইনসিওরেন্স বিল্ডিং-এর সামনে বীমাকর্মীদের একটি সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বি ই এফ নেতা স্বপন ভৌমিক, বীমাকর্মী আন্দোলনের নেতা প্রদীপ বসাক, শ‌্যামল রায়। সভাপতিত্ব করেন ধনঞ্জয় ব‌্যানার্জি। হিন্দুস্থান বিল্ডিংসহ কলকাতা শহরের সবকটি জীবন বীমা দপ্তরে এবং পূর্বাঞ্চলের সর্বত্র বিক্ষোভ সভা হয়েছে বলে জানান পূর্বাঞ্চল জীবন বীমা কর্মচারী সমিতির নেতা অনুপ চক্রবর্তী। অল ইন্ডিয়া নাবার্ড এমপ্লয়িজ অ‌্যাসোসিয়েশন-এর নেতা রানা মিত্র এদিন জানান, কলকাতায় নাবার্ড-এর আঞ্চলিক দপ্তরের অফিসার ও কর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। দেশের অন্যত্রও নাবার্ড দপ্তরে বিক্ষোভ হয়েছে ব‌্যাঙ্ককর্মীদের আন্দোলনের সমর্থনে।

শিলিগুড়িসহ সমগ্র উত্তরবঙ্গজুড়ে ব্যাঙ্ক ধর্মঘটের প্রথম দিন সর্বাত্মক সফল। এদিন শিলিগুড়ি শহরসহ গ্রামাঞ্চলের সমস্ত ব্যাঙ্ক, এ টি এম কাউন্টার বন্ধ ছিল। উত্তরের কোচবিহার, জলপাইগুড়ি, উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর, মালদহ জেলাতেও ব্যাঙ্ক ধর্মঘট ছিল সর্বাত্মক। ইউনাইটেড ফোরাম অব ব্যাঙ্ক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ জানান, স্বতঃস্ফূর্তভাবে ব্যাঙ্ক কর্মচারীরা এই ধর্মঘটে শামিল হয়েছেন। বৃহস্পতিবারও সর্বাত্মক ব্যাঙ্ক ধর্মঘট হবে।

মতামত
এই খবরটি সম্পর্কে আপনার মতামত
 

আমাদের এই খবরটি সম্পর্কে আপনার মতামত পেলে বাধিত থাকব। তবে যথাযথ যাচাই না করে ২৪ঘন্টার আগে আপনার মতামত ওয়েবসাইটে দেখা যাবে না।

Top
 
Name
Email
Comment
For verification please enter the security code below