আজকের দিনে



 

ছবির খাতা

জনতার ব্রিগেড

আরো ছবি

ভিডিও গ্যালারি

Video

শ্রদ্ধাঞ্জলি

রাজ্য

জাতীয়

আন্তর্জাতিক

কলকাতা

জেলা

খেলা

সম্পাদকীয়

 

শতবর্ষে শ্রদ্ধা

আপনার রায়

গরিবের পাশে থেকেছে বামফ্রন্টই

হ্যাঁ
না
জানি না
 

ই-পেপার

Back Previous Pageমতামত

এরাজ্যে সন্ত্রাসে আক্রান্ত মানুষকে আইনী
সহায়তা দেবে গণতান্ত্রিক আইনজীবী সঙ্ঘ

নিজস্ব প্রতিনিধি

কলকাতা, ২২শে সেপ্টেম্বর— শুধু খুচরো কারবারই নয়, কেন্দ্রের সরকার এদেশের সমস্ত পেশা ও রুজির রাস্তায় বিদেশী পুঁজি ও দক্ষতা আনার নামে কার্যত নতুন নতুন বেকার বাহিনী তৈরি করার পদক্ষেপ নিচ্ছে। বাদ যাবেন না শিক্ষিত পেশাজীবীরাও। সাম্রাজ্যবাদের এ হলো নতুন কৌশল বা চক্রান্ত। নির্লজ্জ কেন্দ্রীয় সরকার এই লক্ষ্যে কখনও নতুন আইন তৈরি করতে চাইছে, আবার কখনোও পুরানো আইন বাতিল করছে। এদেশের আইন পেশার ক্ষেত্রেও সেই আক্রমণ সংগঠিত করতে উদ্যত ওরা। এর বিরুদ্ধে সমস্ত শক্তি দিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। শনিবার হুগলী জেলার চুঁচুড়ায় পশ্চিমবঙ্গ গণতান্ত্রিক আইনজীবী সঙ্ঘের রাজ্য কার্যকরী সভায় এই আহ্বান জানান নেতৃবৃন্দ। তাঁরা আরো বলেন, রাজ্যের সন্ত্রাসময় পরিবেশে সাধারণ মানুষও আক্রান্ত হচ্ছেন। আক্রান্ত মানুষের বিরুদ্ধেই মিথ্যা মামলা রুজু করে তাঁদের হয়রান করা হচ্ছে। এই সন্ত্রাসের প্রতিবাদ করার সঙ্গে সঙ্গে যেখানে দরকার হবে, সেখানেই আইনী সহায়তা দেওয়ার জন্য গণতান্ত্রিক আইনজীবী সঙ্ঘের সদস্য আইনজীবীদের এগিয়ে আসতে হবে।

এদিন ঠিক সকাল দশটায় শুরু হয় রাজ্য কার্যকরী সভা। সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের রাজ্য সভাপতি নিশীথরঞ্জন অধিকারী। এই সময়ের মধ্যে দেশ–বিদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের শহীদ ও সন্ত্রাস কবলিত এলাকায় নিহত মানুষ ও প্রয়াত বিশিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শোক প্রস্তাব উত্থাপন করেন সংগঠনের রাজ্য নেতৃত্বের পক্ষে মিহির ব্যানার্জি। সভায় মূল আলোচ্য প্রতিবেদন পেশ করেন সংগঠনের রাজ্য সম্পাদক অশোক বক্সি। প্রতিবেদনে প্রতিটি জিনিসের লাগামছাড়া দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়ে সমস্ত গরিব ও মধ্যবিত্ত মানুষকে গণবণ্টন ব্যবস্থার মাধ্যমে সরকার নির্দিষ্ট ন্যায্য মূল্যে ১৪টি নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী দেওয়ার দাবি তোলা হয়েছে। এছাড়া প্রতিবেদনে সারা রাজ্যে শাসক তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত সরকারী প্রশাসন ও ওই রাজনৈতিক দলের সন্ত্রাসের নিন্দা করে প্রশাসনকে সতর্ক করা হয়েছে। মহিলাদের পক্ষে অবমাননাকর সমস্ত ঘটনার নিন্দা করে আগামী ২৯শে সেপ্টেম্বর কলকাতায় ভারত সভা হলে এই বিষয়ে মহিলা আইনজীবীদের আলোচনাসভা সফল করার আহ্বানও জানানো হয়েছে।

এই প্রতিবেদন পেশ করে সংগঠনের সম্পাদক বলেন, এই সন্ত্রাসের পরিবেশে সাধারণ মানুষ বড়ই বিপন্ন। সরকারী প্রশাসনও নির্বিকার। অত্যাচারিত মানুষের পাশে তাই আইনী সহায়তা নিয়ে আমাদের বন্ধুর মতো দাঁড়াতে হবে। তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার আমাদের দেশের আইন শিক্ষা এবং আইনী পেশায় বিদেশীদের অনুপ্রবেশকে ঢালাও স্বীকৃতি দিতে চাইছে। সারা দেশই তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে মুখর হয়ে উঠেছে। আগামী ডিসেম্বর মাসে ২৭ থেকে ৩০ তারিখ দিল্লিতে ‘অল ইন্ডিয়া ল’ ইয়ার্স ইউনিয়ন’–এর সর্বভারতীয় সম্মলনেও তার প্রতিফলন ঘটবে। আমরা দেশের সমস্ত আদালতে এই প্রতিবাদ আন্দোলনের ঢেউ পৌঁছে দিতে চাই। আমরা চাই এদেশের যুবক–যুবতীরা আধুনিক আইন পাঠক্রমে পড়াশোনা করে আসুক আইন পেশায়। কর্মসংস্থান হোক তাঁদের। বিদেশীরা এসে সেই পথ রুদ্ধ করতে চাইলে তার বিরুদ্ধে আন্দোলন হবেই।

এদিন সভা থেকে সংগঠনের ২টি সহ সভাপতি পদে তৈমুর হোসেন এবং বীরেন রায়, ৩টি সহ সম্পাদক পদে সুব্রত মুখোপাধ্যায়, সিদ্ধার্থ রায়, তপন জোয়ারদার এবং কার্যকরী কমিটিতে দু’জন আমন্ত্রিত সদস্যকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

মতামত
এই খবরটি সম্পর্কে আপনার মতামত
 

আমাদের এই খবরটি সম্পর্কে আপনার মতামত পেলে বাধিত থাকব। তবে যথাযথ যাচাই না করে ২৪ঘন্টার আগে আপনার মতামত ওয়েবসাইটে দেখা যাবে না।

Top
 
Name
Email
Comment
For verification please enter the security code below