তদন্ত প্রভাবিত করতেই অনুব্রতের
প্রশংসা মমতার,মন্তব্য বিমান বসুর

নিজস্ব প্রতিনিধি   ১৭ই ফেব্রুয়ারি , ২০১৪

কলকাতা, ১৬ই ফেব্রুয়ারি— খুনের অপরাধে অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডলকে সার্টিফিকেট দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি তদন্ত প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করতে চাইছেন বলে অভিযোগ করলেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু। রবিবার বেলঘরিয়াতে বলশেভিক পার্টি অব ইন্ডিয়ার রাজ্য সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্বে ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি বলেছেন, বীরভূমের তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডলের বিরুদ্ধে তৃণমূলেরই সাগর ঘোষ নামের একজনকে খুনের অভিযোগে তদন্ত চলছে। এই ব্যক্তির শরীরে অক্সিজেনের অভাব আছে কিনা জানি না, কিন্তু উনি পুলিসকে বোমা মারতে বলেছিলেন আর নির্দল প্রার্থীদের বাড়ি জ্বালিয়ে দিতে বলেছিলেন। তারপরেই সাগর ঘোষকে খুন হতে হয়েছে। এই সব কিছু জেনেও মুখ্যমন্ত্রী কেন তাঁকে সার্টিফিকেট দিলেন?

বসুর বক্তব্য, তৃণমূল দলটার কোনো নীতি আদর্শ নেই, তাদের কাছে আমার কোনো প্রত্যাশাও নেই। মুখ্যমন্ত্রী যা বলেছেন তৃণমূল নেত্রী হিসাবে সেটা শোভা পেতে পারে, কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শোভা পায় না। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য এই ধরনের মন্তব্য নয়। বরং তদন্তে প্রভাব বিস্তার করতেই এই মন্তব্য।

রবিবার বেলঘরিয়ার নন্দননগরে গীতাঞ্জলি হলে বলশেভিক পার্টির রাজ্য সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্বে বিমান বসু ভাষণ দিয়ে সারা দেশে কংগ্রেস এবং বি জে পি-র বিকল্প জোট গঠনের লক্ষ্যে এবং এরাজ্যে তৃণমূলের সন্ত্রাস মোকাবিলায় ঐক্যবদ্ধ ও শক্তিশালী বামপন্থী আন্দোলনের প্রয়োজনীয়তা ব্যাখ্যা করেছেন। রাজ্যে সরকারী পৃষ্ঠপোষকতায় তৃণমূল কংগ্রেসের নেতৃত্বে কীভাবে সন্ত্রাস চালানো হচ্ছে তা বোঝানোর জন্যই অনুব্রত মণ্ডলের ঘটনাটির উল্লেখ করে বসু বলেছেন, রাজ্যে সরকার পরিবর্তনের পরে ১৪৫জন বামপন্থী কর্মী খুন হয়েছেন, ৪৫হাজার বামপন্থী কর্মী ঘরছাড়া, মিথ্যা অভিযোগে মামলা করা হয়েছে ৪৬হাজার। স্বাধীনভাবে নিজের বিশ্বাস অনুযায়ী কথা বলা যাচ্ছে না। এই অবস্থার অবসান চাই। তারজন্য বামপন্থীদের ঐক্যবদ্ধভাবে সংগ্রাম করতে হবে। বামফ্রন্টের সব পার্টিকে গণতন্ত্র রক্ষার জন্য আন্দোলনের কর্মসূচী নিতে হবে। সব শরিক দলকে নিজেদের শক্তিশালী করে বামফ্রন্টকে শক্তিশালী করতে হবে।

শুধু সন্ত্রাস নয়, তৃণমূল সরকার মানুষকে বিভ্রান্ত করছে বলেও অভিযোগ করে বসু বলেছেন, শোষিত মানুষের মধ্যে বামপন্থীরা বরাবরই কাজ করে থাকে। কিন্তু এখন দক্ষিণপন্থীরাও তাঁদের বিভ্রান্ত করার জন্য সক্রিয় হয়ে উঠেছে। আগে যারা আদিবাসীদের অবজ্ঞা করতো, তারা এখন আদিবাসীদের মধ্যে অসত্য প্রচার করে তাদের বিভ্রান্ত করছে। তৃণমূল কংগ্রেস আদিবাসীদের জন্য নানা প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। কিন্তু কাজ কী করেছে? আদিবাসীদের বার্ধক্যভাতা বন্ধ, আদিবাসী ছাত্রদের স্টাইপেন্ড বন্ধ। সরকার কেবল উৎসবের নামে টাকা ওড়াচ্ছে।

এদিন বলশেভিক পার্টির সম্মেলনে পার্টির সাধারণ সম্পাদক শশীকান্ত ওয়েকার, রাজ্য সম্পাদক চিত্ত নাথ, সি পি আই নেতা ভানু দত্ত, ডি এস পি নেতা নজরুল ইসলাম প্রমুখও ভাষণ দেন। সম্মেলন মঞ্চের নাম রাখা হয়েছিলো বলশেভিক পার্টির প্রয়াত সভাপতি কালীপদ ঘোষের নামে। শশীকান্ত ওয়েকার এবং চিত্ত নাথ বলেছেন, ১৯৩৯ সালে কলকাতায় বলশেভিক পার্টির প্রতিষ্ঠা হয়েছিলো এবং যুক্তফ্রন্ট সরকারে পার্টির ভূমিকা ছিলো। কিন্তু পরবর্তীকালে বলশেভিক পার্টি এরাজ্যে দুর্বল হয়ে যায়, বামফ্রন্টের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। বিগত কয়েকবছরে বলশেভিক পার্টির ফের পুনর্গঠন করা হয়েছে, বামফ্রন্টে ফের অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। বর্তমান সময়ে বামপন্থী একটি পার্টি হিসাবে লেনিনের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়েই বলশেভিক পার্টি কাজ করতে চায়।







Current Affairs

Featured Posts

Advertisement