ধর্ষিতা ছাত্রীর মৃত্যু নিয়ে
অশালীন প্রশ্ন বিধায়কের

সংবাদসংস্থা

পাটনা, ১১ই জানুয়ারি — একজন ছাত্রীর ধর্ষণ এবং মৃত্যু নিয়ে অন্য ছাত্রীদের অত্যন্ত অশালীনভাবে প্রশ্ন করলেন বিহারের বিধায়ক লালন পাশোয়ান। তিনি বিহারে বি জে পি-র সঙ্গী রাষ্ট্রীয় লোক সমতা পার্টির বিধায়ক। এই দলের প্রতিষ্ঠাতা আবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী উপেন্দ্র কুশওয়াহা। এই বিধায়ক অসভ্যের মতো জানতে চেয়েছেন, মৃত ছাত্রী যে ধর্ষিতা হয়েছিল তার প্রমাণ কী? সেই ছাত্রীর কোথা থেকে রক্ত পড়ছিলো?

নির্লজ্জভাবে লালন পাশোয়ান তার এই প্রশ্নের সাফাই দিয়ে বলেছেন, দলিত হস্টেলের এই মেয়েদের তিনি প্রশ্ন করে সাহায্য করছিলেন! তাঁর আরো সাফাই, তাঁর প্রশ্ন করার পদ্ধতি হয়তো ভুল, কিন্তু তাঁর উদ্দেশ্য একদম স্পষ্ট।

গত রবিবার বৈশালীতে সরকারি এক হস্টেলে দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। তাঁকে যখন উদ্ধার করা হয় জামাকাপড় রক্তে ভেসে যাচ্ছিল। এই মর্মান্তিক ঘটনার তদন্ত নিজেই করার সিদ্ধান্ত নেন এই বিধায়ক এবং সেই অনুযায়ীই ছাত্রীদের কাছে চূড়ান্ত অশালীনভাবে প্রশ্ন করতে থাকেন তিনি। এমনকী তাঁর নিম্ন রুচির প্রশ্নগুলি থেকে রেহাই পাননি শিক্ষিকারাও।

লালন পাশোয়ান ছাত্রীদের বলেন তাঁরা শিক্ষিত, ফলে তাঁদের সোজাসুজি উত্তর দেওয়া উচিত। সেই ছাত্রীকে তিনি অশালীনভাবে বলেন, ছাত্রীটি যদি ঠিকভাবে তাঁর প্রশ্নের উত্তর দিতে না পারে তাহলে কখনো সে ধর্ষিতা হলে কী করবে সে? তার বাড়িতে যদি কোনো ধর্ষক এসে যায়, সেই সময় কী করবে সে? দৃশ্যত অসহায় এবং অস্বস্তিতে পড়া ছাত্রীটিকে এরপরও ছাড় দেননি নিজের ক্ষমতা প্রদর্শনে মত্ত এই বিধায়ক। পাশোয়ানের গুরুতর অভিযোগ হলো, এই হস্টেলের ছাত্রীদের সঙ্গে বাইরের ছেলেদের যোগাযোগ আছে। তিনি শিক্ষিকাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন, তাঁরা যে কেউ এই ছাত্রীদের সঙ্গে কোনো ছেলের যোগাযোগ করিয়ে দিয়ে থাকতে পারেন! পাশোয়ান এমন অশালীন এবং নির্লজ্জভাবে প্রশ্ন করার পরও অবশ্য এখনো তাঁর দলই হোক বা জোটসঙ্গী বি জে পি-র কোনো নেতাই কোনো মন্তব্য করেননি। পাশোয়ানের মন্তব্যের ন্যূনতম নিন্দাটুকুও তারা কেউই করেনি।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement