ভাতা জোটেনি, ভিক্ষাই
ভরসা রানি মেঝানের

নিজস্ব সংবাদদাতা

পুরুলিয়া, ২০শে মার্চ—বয়স পে‍‌রিয়েছে ৭৫। বয়সের ভারে ন্যুব্জ। শরীরটাকে নিয়ে প্রশাসনের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরছেন বছরের পর বছর। তবুও মেলেনি বিধবাভাতা। ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করেন। প্রশাসন থেকে প্রতিশ্রুতি ছাড়া আর কিছুই পাননি নিতুরিয়া থানার রানি মেঝান। এরাজ্যে নাকি মানুষ সব কিছু পেয়ে গেছেন—এমনটাই দাবি রাজ্য সরকারের। অথচ রানি মেঝান কিছুই পাননি। জীবদ্দশায় আর কোনও সাহায্য পাবেন কিনা সেটা জানেন না অসহায় বৃদ্ধা।

পুরুলিয়ার নিতুরিয়া থানার দীঘা গ্রাম পঞ্চায়েতের ইনানপুর মা‍‌ঝিপাড়ার বাসিন্দা রানি মেঝান। শরীরে ব‌য়স থাবা বসিয়েছে ভালোভাবেই। পরিজন বলতে কেউ নেই। মাথা গোঁজার সামান্য একটু ঠাঁই ছাড়া আর কিছুই নেই। লাঠিতে ভর দিয়ে হাঁটাচলা। বহুদিন ধরে সামান্য বিধবাভাতার জন্য পঞ্চায়েতে দরবার করেছেন। সোজা হয়ে হাঁটতে পারেন না। কষ্ট করে কয়েকদিন অন্তর অন্তর যান প্রশাসনের দরজায়। দু‘বেলা খাবারের সংস্থান করেন ভিক্ষে করে। শেষ বয়সে একটু নিশ্চিন্তে থাকার জন্য ভাতার আবেদন জানিয়েছেন। কিন্তু মেলেনি।

অসহায় সেই বৃদ্ধার বক্তব্য, সামান্য একটু ভাতার জন্য আর ক’দিন অপেক্ষা করতে হবে। যেদিন ভিক্ষা করতে যেতে পারেন না—সেদিন দু’বেলা খাওয়ারও জোটে না। প্রশাসন থেকে প্রতিশ্রুতি ছাড়া আর কিছুই এখন অবধি পাননি।