ভুয়ো চিকিৎসক সন্দেহে
ধৃত এক চাপড়ায়

নিজস্ব সংবাদদাতা

কল্যাণী, ১৭ই জুন – শনিবার চাপড়া থানার পুলিশ ভুয়ো চিকিৎসক সন্দেহে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে। ধৃতের নাম আদিত্যচন্দ্র মণ্ডল।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, চাপড়া থানা এলাকায় শ্রীনগরে প্রায় ১০বছরের বেশি সময় ধরে ডাক্তারি করতেন মণ্ডল। কিন্তু সম্প্রতি রাজ্যের নানা জায়গায় ভুয়ো চিকিৎসকদের গ্রেপ্তারের ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন তিনি। কিছু দিন আগেই নিজের নাম লেখা বোর্ড তিনি চেম্বারের বাইরে থেকে খুলে নেন। স্থানীয় বাসিন্দাদের সন্দেহ হলে তাঁরা বিষয়টি থানায় জানান। এরপর পুলিশ শুক্রবার রাতে ওই অভিযুক্ত ভুয়ো চিকিৎসককে আটক করে চাপড়া থানায় নিয়ে আসে। সেখানে দীর্ঘসময় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তাঁকে। পুলিশের দাবি অভিযুক্তকে জেরা করে তাঁর থেকে মিলেছে প্রেসক্রিপশন। তাতে ওই ভুয়ো চিকিৎসক নিজেকে এম বি বি এস বলে দাবি করেছেন। শুধু তাই নয় নিজেকে বর্ধমানের এক হাসপাতালের প্রাক্তন আধিকারিক বলেও দাবি করেন। তবে এম বি বি এস বলে দাবি করলেও কোনো প্রমাণ দেখাতে না পারায় তাঁকে পুলিশ শনিবার গ্রেপ্তার করে। জেরার মুখে অভিযুক্ত জানান, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের রেজিস্ট্রেশন নম্বরকে নিজের রেজিস্ট্রেশন নম্বর বলে লিখতেন প্রেসক্রিপশনে। এর আগেও গত ১৫ই জুন হাঁসখালি এলাকা থেকে পুলিশ দুজন জাল চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করেছে। এই ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে খানিকটা আতঙ্কও তৈরি হয়েছে। এদিন অভিযুক্ত আদিত্যচন্দ্র মণ্ডলকে আদালতে তোলা হলে বিচারক পুলিশ হেপাজতের নির্দেশ দেন।