সম্প্রীতি রক্ষায় ছাত্রদের আরও
গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেবার আহ্বান

নিজস্ব সংবাদদাতা

পুরুলিয়া, ১৬ই জুলাই— ধর্মকে হাতিয়ার করে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা তৈরি করে সমাজকে পঙ্গু করে দেওয়া হচ্ছে। ধর্মের জিগির তুলে মানুষে মানুষে বিভেদ তৈরি করা হচ্ছে। হাজারো সমস্যা থেকে মানুষের দৃষ্টি ঘুরিয়ে দিতে ধর্মের তাস খেলছে দুই সরকার। কিন্তু এরাজ্যের মানুষ দাঙ্গা চায় না, হানাহানি চায় না— চায় সম্প্রীতি। আর এই সম্প্রীতির লড়াইয়ে ছাত্র-যুব সমাজকে লড়াইয়ের যোগ্য সৈনিক হিসেবে গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে রবিবার এ বি ‍‌টি এ হলে এস এফ আই, ডি ওয়াই এফ আই-এর ডাকে হিংসার রাজনীতির বিরুদ্ধে কনভেনশন হলো। প্রধান বক্তা ছিলেন ডি ওয়াই এফ আই-এর প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি মইনুল হাসান, এস এফ আই-র রাজ্য নেতা সৌম্যজিত রজক, ডি ওয়াই এফ আই-র জেলা সম্পাদক ত্রিদিব চৌধুরি প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন সুশান্ত বেসরা। উপস্থিত ছিলেন মীনাক্ষী মুখার্জি, দীপংকর মাঝি, গৌতম দাসসহ গণ-আন্দোলনের নেতা প্রদীপ রায় প্রমুখ।

তুলে ধরো সম্প্রীতির ঐতিহ্য, তীব্র করো মাড়ভাতের লড়াই। হিংসার রাজনীতির বিরুদ্ধে কনভেনশনে মইনুল হাসান বলেন, সারা দেশজুড়ে যেভাবে সাম্প্রদায়িক শক্তি প্রবলভাবে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে, তাতে দেশের অখণ্ডতা, সম্প্রীতি, দেশের ধর্মনিরপেক্ষতা প্রতি মুহূর্তে ঠোক্কর খাচ্ছে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ক্ষেত্রে দুই সরকারের ভূমিকা অত্যন্ত ন্যক্কারজনক। ৩৪ বছরে এরাজ্যের মানুষ দাঙ্গা দেখেনি। কমরেড জ্যোতি বসু সঠিক নেতৃত্ব দিয়ে বাব‍‌রি মসজিদ ভাঙার পর পরিস্থিতি সামাল দিয়েছিলেন। আর এখন এই রাজ্যে? বসিরহাটে যখন দাঙ্গা চলছে, মানুষের ঘর পুড়ছে, তখন এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপাল পরস্পর মেতে উঠেছিলেন কাজিয়ায়। মানুষের হাতে কাজ নেই, কারখানা নেই, জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে, তার বিরুদ্ধে কোনও লড়াই নেই, নেই কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ। সমস্যা থেকে মানুষের দৃষ্টি ঘুরিয়ে দেওয়ার জন্যই সারা দেশে অসহিষ্ণুতার রাজনীতি।

এই রাজনীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তিনি ছাত্র-যুবসমাজকে আদর্শ যোগ্য সৈনিক হিসেবে গড়ে তোলার আহ্বান জানান। ছাত্রনেতা সৌম্যজিৎ রজক বলেন, পুরুলিয়া জেলা তাঁর জন্মভূমি। শৈশব-কৈশোর কেটেছে যে জেলায়, সেই জেলার দাঙ্গা আগে কোনোদিন হয়নি। দাঙ্গা মানুষকে কষ্ট দেয়, ধর্ম মানুষে মানুষে বিভেদ তৈরি করে— যা সুস্থ সমাজের লক্ষণ নয়। আগামী দিনে সম্প্রীতি রক্ষায় ছাত্র-যুবকে আরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেওয়ার আহ্বান জানানো হয় কনভেনশন থেকে।