ধর্মীয় ফ্যাসিবাদের
বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হোন

নিজস্ব সংবাদদাতা

স্বরূপনগর, ১২ ই আগস্ট — ধর্মীয় ফ্যাসিবাদ আপনাদের দরজায় কড়া নাড়ছে । আপনি খেতমজুর, আপনি গরিব কৃষক ,গ্রামীণ শ্রমজীবী — এই পরিচয় নিয়ে ধর্মীয় ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হোন । তা না হলে বিপদ ঘোরতর। শনিবার স্বরূপনগরে কৃষক - খেতমজুর ,গ্রামীণ শ্রমজীবী, ছাত্র, যুব মহিলাদের উদ্দেশ্যে এই বার্তা দিলেন সি পি আই (এম) রাজ্য কমিটির সদস্য মইনুল হাসান । এদিন পার্টির স্বরূপনগর জোনাল কমিটির ডাকে তেঁতুলিয়া গার্লস হাইস্কুলে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির পক্ষে এক সভা হয়। সকাল থেকে নাগাড়ে চলতে থাকা বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে সভাস্থল ছিল ভিড়ে ঠাসা । সভাপতিত্ব করেন হামালউদ্দিন আহমেদ । শুরুতে প্রয়াত কমিউনিস্ট নেতা কমরেড গোপাল ভট্টাচার্য ও রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে বন্যায় মৃতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয় । এছাড়াও বক্তব্য রাখেন পার্টির রাজ্য কমিটির সদস্য মৃণাল চক্রবর্তী । মইনুল হাসান বলেন, দেশ জুড়ে ফাঁদ পেতেছে বি জে পি । সেই ফাঁদে কেউ পা দেবেন না । এক ভয়াবহ পরিস্থিতির দিকে দেশকে নিয়ে যাচ্ছে ওরা। গোরক্ষা, গোমাংসের নামে খুন হচ্ছে গোরু ব্যবসায়ী, কৃষক । আত্মহত্যা করছে বেকার যুবক । এর বিরুদ্ধে একটি কথাও বলছেন না প্রধানমন্ত্রী , এমনকি এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীও। দেশের চারটি শীর্ষ পদে বসানো হয়েছে আর এস এস-র সদস্যদের । হিন্দু রাষ্ট্র বানাতে চাইছে ভারতকে । কোন হিন্দুদের হিন্দুরাষ্ট্র হবে ভারত ?  এই প্রশ্নে হাসান বলেন, উচ্চবর্ণের হিন্দুদের রাষ্ট্র তৈরি করতে চাইছে ওরা। যেখানে বিশেষ করে তফসিলি জাতি আদিবাসীদের কোনও অধিকার থাকবে না । উচ্চবর্ণের হিন্দুরা ঠিক করে দেবে বাকিরা কী খাবে কী পড়বে, কোথায় যাবে, কী করবে ।

পাটের দাম নেমে যাচ্ছে সেদিকে খেয়াল নেই ।পাটচাষি, তুলাচাষি, রেশমচাষিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে  আত্মহত্যার পথে।  এসব গুলিয়ে দিতে সাম্প্রদায়িক মেরুকরণ চলছে দেশজুড়ে। আর তাকে বাড়তে সাহায্য করছে এই রাজ্যের তৃণমূল নামক দলটি । এদের শ্রেণিগত চরিত্র এক । এই রকম ভয়ানক পরিস্থিতিতে আমাদের কাজ মানুষকে শ্রেণি আন্দোলনে  উদ্বুদ্ধ করা । তারজন্য রাস্তায় নামাই একমাত্র পথ । বিকল্প কোন পথ নেই । মৃণাল চক্রবর্তী বলেন, বাদুড়িয়া -বসিরহাটের ঘটনা বসিরহাটের ঐতিহ্যকে ধূলিসাৎ করে দিয়েছে । সুন্দরবনের বনবিবির পূজা, হাসনাবাদের কুমারপুকুর মেলা এ সবই হিন্দু- মুসলমানের মিলিত প্রয়াসে সংগঠিত হয়ে আসছে দীর্ঘকাল ধরে । কালী মূর্তির বিসর্জন হয় কুমারপুকুরে মসজিদের পুকুরে । সেই ঐতিহ্যে কিছুতেই যাতে আঘাত না লাগে তা আমাদের দেখতে হবে।