৫ই সেপ্টেম্বর কলকাতায় ৫০হাজার
শ্রমিকের সমাবেশ হবে

নিজস্ব প্রতিনিধি

কলকাতা, ১২ই আগস্ট — সমকাজে সমবেতন, ঠিকা শ্রমিকদের স্থায়ীকরণ, ন্যূনতম ১৮ হাজার টাকা মাসিক মজুরিসহ সকলের জন্য সামাজিক সুরক্ষার দাবিকে সামনে রেখে কেন্দ্রের মোদী সরকারের জনবিরোধী ও শ্রমিক স্বার্থবিরোধী নীতির প্রতিবাদে লাগাতার ধর্মঘটের প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে দেশজুড়ে। আগামী ৫ই সেপ্টেম্বর এই দেশ ও দেশের শ্রমিক শ্রেণির দাবিগুলির প্রতি যথার্থ মর্যাদা আদায়ের লক্ষ্য নিয়ে এই রাজ্যজুড়ে চলবে তারই প্রচার। কলকাতা সহ জেলায় জেলায় সি আই টি ইউ – র ডাকে জমায়েত হবে। কলকাতায় ঐদিন ৫০ হাজার শ্রমিকের সমাবেশ হবে। শনিবার সকালে কলকাতায় সি আই টি ইউ রাজ্য দপ্তর শ্রমিক ভবনে সংগঠনের ওয়ার্কিং কমিটির সভায় এই কর্মসূচির কথা জানান নেতৃবৃন্দ।

সভার শুরুতে সারা দেশ ও রাজ্যের শ্রমজীবী মানুষ তথা সাধারণ মানুষের জীবন জুড়ে নানান বঞ্চনা ও জুলুমবাজির তথ্য তুলে ধরেন সংগঠনের পশ্চিমবঙ্গ কমিটির সভাপতি সুভাষ মুখার্জি। তিনি বলেন, শুধু আমাদের দেশেই নয়, সারা দুনিয়াতেই দক্ষিণপন্থী শক্তির একটা দাপাদাপি চলছে এই মুহূর্তে। পুঁজিবাদ তার নিজস্ব সংকটগুলি ঢাকতে চাইছে। এদেশেও সেটাই চলছে। এখানে কেন্দ্রের বি জে পি পরিচালিত সরকার ঘোরতর শ্রমিক স্বার্থ বিরোধী ভূমিকা পালন করে চলেছে একেবারে গোড়া থেকেই। রাষ্ট্রায়ত্ত ও বেসরকারি সমস্ত উৎপাদন ক্ষেত্রেই সংকট।

এদিনের সাংগঠনিক কার্যকরী সমিতির এই সভায় আলোচ্য প্রতিবেদন পেশ করেন সংগঠনের পশ্চিমবঙ্গ কমিটির সাধারণ সম্পাদক অনাদি সাহু। এই প্রতিবেদনে দেশের বর্তমান অবস্থা, জি এস টি প্রসঙ্গ, বি জে পি, আর এস এস এবং সাম্প্রদায়িক বিভেদ, বিগত রাজ্য সম্মেলনে গৃহীত রাজনৈতিক-সাংগঠনিক কর্মসূচি রূপায়ণ প্রসঙ্গ, মতাদর্শগত বিষয়, বি পি এম ও এবং আন্দোলন কর্মসূচি, নবান্ন অভিযানের পর্যালোচনা, আগস্ট মাস জুড়ে রাজ্যে কেন্দ্রীয় প্রচার ও ৫ই সেপ্টেম্বরের জমায়েতের গুরুত্ব, চা, কয়লা, চট শিল্পের আন্দোলন, গ্রামীণ সমাজে কৃষি ক্ষেত্র থেকে উদ্বৃত্ত অংশের অসংগঠিত শ্রমিক, কেন্দ্রীয় এবং রাজ্যের হাতে থাকা রাষ্ট্রায়ত্ত ক্ষেত্রকে রক্ষা করা, পরিবহণ শ্রমিকদের আন্দোলন প্রসঙ্গ, নির্মাণশিল্প, বিদ্যুৎশিল্প, আই সি ডি এস, মিড ডে মিল ও আশা কর্মীদের আন্দোলন, শ্রমিক-কৃষক-খেতমজুর সংগঠনের যৌথ কর্মসূচি প্রসঙ্গ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।

এই প্রতিবেদনের ওপর রাজ্যের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত প্রতিনিধিরা আলোচনায় অংশ নেন। এদিনের সভায় উপস্থিত ছিলেন সি আই টি ইউ নেতা দীপক দাশগুপ্ত।