Shooting Walmart

ওয়ালমার্টের সুপারমার্কেটে হামলায় হত ৭

আন্তর্জাতিক

Shooting Walmart

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ওয়ালমার্টের সুপারমার্কেটে বন্দুক হামলায় আততায়ী সহ ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ভার্জিনিয়া প্রদেশে বন্দুকবাজের নাশকতার ঘটনাটি ঘটে। দোকানটির ম্যানেজার প্রথমে ক্রেতাদের দিকে গুলি চালায়। এর পর গুলি করে আত্মঘাতী হয়। বুধবার ভোরে সেসাপেক পুলিশের তরফে এই কথা জানান হয়েছে।

 


সামনেই থ্যাঙ্কস গিভিং ডে। আসন্ন উৎসবের সামগ্রী কেনাকাটা করতে সুপারমর্কেটে বহু লোক ভিড় করেছিল। সুপারমার্কেটের একটি স্টোরে ঢুকে পুলিশ কর্মীরা অনেককে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করেন। অকুস্থলেই ৭ জনের মৃত্যু হয়। অবশ্য বন্দুকবাজের গুলি চালানোর কারণ সম্পর্কে পুলিশের পক্ষ থেকে কিছু জানান হয়নি।
বন্দুকবাজের হামলার খবর চাউর হতেই আশপাশে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। টেলিভিশনে থতমত অবস্থায় ঘটনার বিবরণ দিকে দেখা গেছে ওয়ালমার্টের পোশাক পরা কর্মীকে। 

 

 

দোকানের থেকে বেরিয়ে আসার পরে ম্যানেজার গুলি চালায় বলে জানান তিনি। ‘‘আমাদের বেশ কয়েকজন সহকর্মী গুলিবিদ্ধ,’’ জানান তিনি। অবশ্য দোকানের কতজন কর্মী হতাহত তা নিয়ে নির্দিষ্ট ভাবে কিছু জানাতে পারেননি তিনি। 
পুলিশের মুখপাত্র লিও কোসিনস্কি জানান, আততায়ী সম্ভবত একজন। স্টোরে গুলি চলার ঘটনার পরে বহুজাতিক সংস্থা ওয়ালমার্টের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি প্রকাশ করা হয়। যাতে বন্দুকবাজের হামলায় হতাহতদের পরিজনদের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে পুলিশ ও প্রশাসনের সঙ্গে সব রকমের সহযোগিতার আশ্বাসও দেওয়া হয়েছে।
গুলিবিদ্ধদের মধ্যে ৫ জনের চিকিৎসার কথা সেনটারা নরফোক হাসপাতালের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে। 

 

 

ওয়েভি টিভি পক্ষ থেকেও একই কথা সম্প্রচারিত হয়। ওই টেলিভিশন চ্যানেলকে জনৈক মহিলা তাঁর ২০ বছরের ভাইয়ের গুলিবিদ্ধ হওয়ার বিষয়ে বলেন। তিনি আরও জানান, দোকানে ঢোকার মাত্র ১০ মিনিটের মধ্যেই তাঁর ভাইকে গুলি করা হয়। বন্দুকবাজের হামলার সময় দোকানেই ছিলেন জোয়েট্টা জেফেরির মা। বৃদ্ধার গুলি না লাগলেও বর্তমানে তিনি আতঙ্কিত জানান জেফেরি।
‘‘আবার একটা বন্দুকবাজের হামলার খবরের পরে নিজেকে অসুস্থ মনে হচ্ছে,’’ টুইট করেন ভার্জিনিয়ার সিনেটর এল লুইস লুকাস। ডেমোক্র্যাট দলের মহিলা সাংসদ জানান, তাঁর মন ভেঙে গেছে। এই দেশে বন্দুক হিংসার ঘটনা পুরোপুরি বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেন তিনি।

 


প্রসঙ্গত, চব্বিশ ঘণ্টা আগেই কলরাডো প্রদেশে এলজিবিটি সম্প্রদায়ের নাইট ক্লাবে বন্দুকবাজের হামলায় ৫ জনের মৃত্যু হয়। আহত হন ১৭ জন। এর আগে ২০১৯ সালে টেক্সাস প্রদেশের এল পাসো শহরে ওয়ালমার্টের স্টোরে বন্দুকবাজের হামলায় ২৩ জনের মৃত্যু হয়। 

0 Comments

Login to leave a comment