Editorial

‘ভিত’-এ পেট ভরে না

সম্পাদকীয়

Editorial Ganashakti

দেশের অর্থনীতি যে চক্করেই পাক খাক না কেন নরেন্দ্র মোদীরা শেয়ালের কুমির ছানা দেখানোর মতো বার বার অর্থনীতির ভিত্তি শক্তিশালীর গল্প শোনান। বিশ্বজুড়ে যখন মন্দার আশঙ্কা প্রবল হচ্ছে তখন যেমন ভিতের তত্ত্ব আউড়ে তৃপ্তির ঢেকুর তোলা হ‍‌‍‍চ্ছে তেমনি ক্রমা‍‌গত বাণিজ্য ঘাটতির জেরে তখন বৈদেশিক লেনদেনে সঙ্কট ও বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ে চাপ বাড়ছে তখনও অম্লান বদনে বলা হচ্ছে ভিত শক্ত আছে। অর্থাৎ ভিত শক্ত আছে এই বার্তা প্রচার করে অর্থনীতির অন্যান্য সব ক্ষেত্রের সঙ্কটকে হয় অস্বীকার করা হচ্ছে অথবা আড়াল করা হচ্ছে। ভিত অতীব গুরুত্বপূর্ণ উপাদান সে বিষয়ে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই। কিন্তু শুধু শক্তিশালী ভিত থাকলেই হয় না, দরকার সেই ভিতের উপর ইমারত নির্মাণ এবং সেখানে বসবাসের উৎকৃষ্ট ব্যবস্থা। মোদী-নির্মলরা ভিত শক্ত আছে বলেই কর্তব্য সমাপণ করছেন। আর বলার চেষ্টা করছেন বিশ্বজোড়া এই দুরবস্থার মধ্যেই ভারত কিন্তু বিশ্বে সর্বোচ্চ হারে বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান দেশ। মোদীরা যেহেতু অর্থনীতির উন্নতির বলতে জি‍‌ডিপি বৃদ্ধিকেই বোঝেন তাই বার বার তাদের কথায় জি‍‌ডিপি’র পরিমাণ এবং জিডিপি বৃদ্ধির হার প্রধান ফোকাসে থাকে। তাই নির্মলা প্রতিদিনই প্রায় কোনও না কোনও অজুহাতে অন্যান্য দেশের তুলনায় উচ্চ বৃদ্ধির হারের কথা আওড়ালো। মোদী এক সময় ৫ ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতির প্রতিশ্রুতি দিতেন। ইদানীং অবশ্য ভুল করে সেটা উচ্চারণ করেন। যেমন ক্ষমতায় আসার আগে বছরে দু’কোটি চাকরির কথা বললেও গত সাত-আট বছর চাকরি দেবার বিষয়টি বেমালুম ভুলে গেছেন। এসবই আসলে কাজ হাসিলের ও সত্য আড়ালের ছলনা মাত্র। অর্থনীতি মানে ভিতের গল্প নয় বা জিডিপি নয়। অর্থনীতির আসল অর্থ মানুষের জীবনযাপনের মান উন্নত হওয়া। ধারাবাহিক কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে বেকারির অবসান ঘটানো। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ও পরিষেবার মূল্যবৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে রেখে মানুষের জীবনধারণের ব্যয় বৃদ্ধি রোধ করা। শুধু কর্মসংস্থান সৃষ্টিই যথেষ্ট নয়, কর্মরত সকলের ন্যূনতম মজুরি নিশ্চিত করতে হয় এবং ক্রম পর্যায়ে তা বাড়ানোর ব্যবস্থা করতে হয়। অর্থনীতি যদি কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে না পারে, বেকারির যদি পাহাড় জমতে থাকে, দীর্ঘস্থায়ী মূল্যবৃদ্ধি যদি মানুষের দৈনন্দিন জীবন অতীষ্ট করে, মানুষের জীবনযাত্রার মানের যদি উন্নতি না হয়, জীবনযাপনের উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা, অনিশ্চয়তা যদি বাড়ে তাহলে শক্ত ভিত বা জিডিপি কি ধুয়ে জল খাবে? মোদীদের অনুসৃত অর্থনীতি জিডিপি-কে গুরুত্ব দেয়, মাথাপিছু আয় বেশি দেখায়। কিন্তু ‍‌‍‌জিডিপি’র সুষম বণ্টন দেখায় না। তাই অর্থনীতি সম্পদ তৈরি করলেও তা সাধারণ মানুষের কাছে আসে না, জমা হয় আদানি-আম্বানিদের মতো শিল্পপতি, ব্যবসায়ী ধনকুবেরদের ঘরে। তারা কোটিপতি থেকে শতকোটিপতি হন, বিশ্বের ধনীশ্রেষ্ঠদের তালিকায় নাম লেখান। কিন্তু আমজনতা যে তিমিরে ছিলেন থেকে যান সেখানেই। মোদীর নজর তাই ভিতে, জি ডি পি-তে, বেকারদের কাজ, মানুষের আয় বৃদ্ধির দিকে নয়।

0 Comments

Login to leave a comment